ষষ্ঠ সপ্তাহের ষষ্ঠ শ্রেনীর গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান | ষষ্ঠ শ্রেনীর গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান (ষষ্ঠ সপ্তাহ)

ষষ্ঠ সপ্তাহের ষষ্ঠ শ্রেনীর গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান | ষষ্ঠ শ্রেনীর গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান (ষষ্ঠ সপ্তাহ)

ষষ্ঠ সপ্তাহের ষষ্ঠ শ্রেনীর গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান | ষষ্ঠ শ্রেনীর গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান (ষষ্ঠ সপ্তাহ)

রচনামূলক প্রশ্নঃ

১। শিশুর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে শিশুকালকে বিভাজন করার প্রয়ােজন আছে কী ? উত্তরের স্বপক্ষে যুক্তি দাও । 

সংক্ষিপ্ত 

২। ক ) বাবা - মা ও শিক্ষককে কীভাবে সম্মান করা উচিত ? তােমার শ্রেণিতে একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বন্ধু আছে । তার প্রতি তােমার আচরণ কেমন হবে ? 

৩। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের পূর্বাভাস জানার পর তুমি কী ধরণের খাবার মজুদ করবে ? কেন ? এসব খাবারকে কী বলা হয় ? 

৪।শীতের শেষে শীতকালীন পােশাকের যত্ন কীভাবে নিবে বুঝিয়ে লিখ ।

বন্ধুরা নিচে ধারাবাহিক ভাবে ষষ্ঠ সপ্তাহের ষষ্ঠ শ্রেনীর গাহস্থ বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান দেওয়া হলো। 

শিশুর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে শিশুকালকে বিভাজন করার প্রয়ােজন আছে কী ? উত্তরের স্বপক্ষে যুক্তি দাও

 রচনাসমূলক প্রশ্নের উত্তর 

( ১ ) শিশুকালকে বিভাজন করা মানে হলাে শিশুদের মধ্যেও বৈষম্য সৃষ্টি করা । এতে করে তাদের মস্তিষ্কে বিরূপ প্রভাব পড়বে । শিক্ষার সুযােগ লাভ করা শিশুর মৌলিক অধিকার । অধিকাংশ দেশেই সামাজিক দায় - দায়িত্বের অংশরূপে এবং অভিভাবকের দিক নির্দেশনায় কিংবা রাষ্ট্রের বাধ্যতামূলক শিক্ষানীতির আলােকে শিশুরা বিদ্যালয় গমন । করে এছাড়াও , ক্ষুদে শিশুরা কিন্ডারগার্টেনের প্লে - গুপে আনন্দ ও খেলার ছলে শিক্ষাগ্রহণ করে শৈশবকালীন প্রাথমিক শিক্ষাকে আলােকিত ও আনন্দময় করে তুলে । 

কিন্তু অনুন্নত দেশ বা পশ্চাদমূখী দেশে মাঝে মাঝে কিংবা প্রায়শই মাতা - পিতার সাথে শ্রমকার্যে অংশগ্রহণ করে অর্থ উপার্জনে জড়িয়ে পড়তে হয় । আমাদের দেশেও বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের শিশু রয়েছে । যাদের মধ্যে অটিস্টিক , প্রতিবন্ধি শিশুরাও রয়েছে । তাই তাদের শিশুকালকে বৈষম্য না করে সবাইকে ভালাে শিক্ষায় গড়ে তুলতে হবে । যাতে করে দেশের কোন শিশুর বৈশিষ্ট্যগত দিক গুলাে ফুটে না ওঠে । তবে বয়স অনুযায়ী শিশুদেরকের বিভাজন করা যেতে পারে । এতে কোন বিরূপ প্রভাব দেখা দিবেনা ।

বাবা - মা ও শিক্ষককে কীভাবে সম্মান করা উচিত ? 

 ২ নং সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর 
( ক ) বাবা - মায়ের প্রতি সম্মান : 
১। বাবা - মায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে । 
২। বাবা -মা যা বলে তা শুনতে হবে এবং পালন করতে হবে । 
৩। বাবা - মায়ের প্রতি যত্নশীল হতে হবে । 
৪। বাবা - মায়ের অসুখ হলে সেবা করতে হবে । 
৫। বাড়ির কাজে তাদের সাহায্য করতে হবে । 

শিক্ষকের প্রতি সম্মান : 
১। শিক্ষকের প্রতি অনুগত থাকতে হবে । 
২। শিক্ষক কোন আদেশ দিলে তা পালন করতে হবে ।
৩। বিদ্যালয়ের বাড়ির কাজ শিক্ষককে সঠিক সময়ে বুঝিয়ে দিতে হবে । 
৪। শিক্ষককে প্রাতিষ্ঠানিক কাজে সাহায্য করতে হবে । ৫। শিক্ষককে সবসময় সুন্দর আচরণ করতে হবে । 

তােমার শ্রেণিতে একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বন্ধু আছে । তার প্রতি তােমার আচরণ কেমন হবে ? 

২ নং সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর

( খ ) আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের শিশু রয়েছে । তাদের মধ্যে অনেকে অটিস্টিক , প্রতিবন্ধী ইত্যাদি । তাদের প্রতি আমাদের সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণ করতে হবে । যাতে তারা আমাদেরকে ভিন্ন চোখে না দেখে । এবং তাদের আচার - আচরণে আমাদের সহানুভূতি দেখাতে হবে । যাতে তারা বুঝতে পারে , তারাও আমাদের মতােই স্বাভাবিক জীবন যাপন করছে । নিচে প্রতিবন্ধীদের প্রতি আমাদের আচরণ কেমন হবে তা দেওয়া হলাে : 

১। প্রতিবন্ধীদের প্রতি অসদাচরণ , উপহাস , ঠাট্টা - তামাশা করা যাবে না । 

২। তাদেরকে সবসময় হাসি - খুশি রাখতে হবে । 

৩। তাদের পছন্দের জিনিসপত্র উপহার দিতে হবে । 

৪। পছন্দের খেলনাপত্র নিয়ে তাদের সাথে খেলা করতে হবে । 

৫। যতটুকু সম্ভব তাদের সময় দিতে হবে ।

বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের পূর্বাভাস জানার পর তুমি কী ধরণের খাবার মজুদ করবে ? কেন ? এসব খাবারকে কী বলা হয়?

৩ নং সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর

উত্তরঃ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগের পূর্বাভাস জানার পর আমি পানি , মুড়ি , পাউরুটি , বিস্কুট ইত্যাদি শুকনা জাতীয় খাবার মজুদ রাখবাে । যাতে বন্যার কোন সম্ভাবনা থাকলে দূষিত পানি পান না করে বিশুদ্ধ পানি পান করা যায় । এবং বন্যায় কবলিত হয়ে বাড়ি - ঘর ডুবে গেলে খাবারের বিভিন্ন ধরণের স্বল্পতা দেখা দেবে । সেই স্বল্পতা এড়াতেই মুড়ি , পাউরুটি , বিস্কুট ইত্যাদি খাবার মজুদ রাখবাে । 

শীতের শেষে শীতকালীন পােশাকের যত্ন কীভাবে নিবে বুঝিয়ে লিখ?

৪ নং সংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর 

উত্তরঃ শীতকাল শেষ হলেই শীতকালকে বিদায় জানানাের পালা । শীতকাল আসলেই বিভিন্ন ধরনের শীত পােশাকের সম্ভার নিয়ে যেমন দোকানিরা সাজিয়ে বসে তেমনি আমাদেরও হাজার রকমের পােশাক নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট চলতেই থাকে । কিন্তু এবার শীতের শেষে পােশাকগুলি যথাস্থানে তােলার সময় চলে এসেছে । কারণ একবার ব্যবহারের পরে । তা পরিস্কার করা কিংবা কাচাও সম্ভব হয় না । কিন্তু শীতের শেষে সমস্ত পােশাক পরিষ্কার করা আবশ্যক । সামান্য একটু পরিচর্যা করলেই শীত পােশাককে নতুনের মতাে রাখা যায় । শীতকালীন পােশাককে ভাল রাখার সহজ কিছু পদ্ধতি / উপায় রইল । নিচে তা দেওয়া হলাে : 

১। ক্লাব সােডা দিয়ে সােয়েটার বা কম্বল ভালভাবে পরিস্কার করা যায় । 

২। ভালভাবে ঝাকিয়ে কাপড় বা পােশাক পরিস্কার করা । যায় । 

৩। ঠান্ডা জল দিয়ে পরিস্কার করলে পােশাক ভালাে পরিস্কার হয় । 

৪। নিমপাতা দিয়ে কাপড় ধােয়া । 

৫। খােলা হাওয়াতে রাখা ইত্যাদি ।

Tag:শিশুর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে শিশুকালকে বিভাজন করার প্রয়ােজন আছে কী ? উত্তরের স্বপক্ষে যুক্তি দাও,বাবা - মা ও শিক্ষককে কীভাবে সম্মান করা উচিত ? তােমার শ্রেণিতে একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বন্ধু আছে । তার প্রতি তােমার আচরণ কেমন হবে ?, বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের পূর্বাভাস জানার পর তুমি কী ধরণের খাবার মজুদ করবে ? কেন ? এসব খাবারকে কী বলা হয় ?, শীতের শেষে শীতকালীন পােশাকের যত্ন কীভাবে নিবে বুঝিয়ে লিখ ।


0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post