অন্ধবধূ যতীন্দ্রমোহন বাগচী কবিতা | কবিতা অন্ধবধূ | Kobita Andhobodhu Jotindromohon Bagchi


       
       

    অন্ধবধূ যতীন্দ্রমোহন বাগচী কবিতা  

    কবিতা অন্ধবধূ  

    Kobita Andhobodhu Jotindromohon Bagchi


    অন্ধবধূ

    যতীন্দ্রমোহন বাগচী


    পায়ের তলায় নরম ঠেকল কী ! 

    আস্তে একটু চল না ঠাকুরঝি – 

    ওমা , এ যে ঝরা - বকুল ! নয় ? 

    তাইতাে বলি , বসে দোরের পাশে , 

    রাত্তিরে কাল- মধুমদির বাসে 

    আকাশ - পাতাল- কতই মনে হয় । 


    জ্যৈষ্ঠ আসতে ক - দিন দেরি ভাই - 

    আমের গায়ে বরণ দেখা যায় ? - 

    অনেক দেরি ? কেমন করে হবে ! 

    কোকিল - ডাকা শুনেছি সেই কবে , 

    দখিন হাওয়া - বন্ধ কবে ভাই ; 

    দীঘির ঘাটে নতুন সিঁড়ি জাগে - 

    শ্যাওলা - পিছল - এমনি শঙ্কা লাগে , 

    পা - পিছলিয়ে তলিয়ে যদি যাই ! 

    মন্দ নেহাত হয় না কিন্তু তায় - 

    অন্ধ চোখের দ্বন্দ্ব চুকে যায় ! 


    দুঃখ নাইকো সত্যি কথা শােন , 

    অন্ধ গেলে কী আর হবে বােন ? 

    বাঁচবি তােরা – দাদা তাে তাের আগে ? 

    এই আষাঢ়েই আবার বিয়ে হবে , 

    বাড়ি আসার পথ খুঁজে না পাবে - 

    দেখবি তখন – প্রবাস কেমন লাগে ? ‘ 

    চোখ গেল ’ ওই চেঁচিয়ে হলাে সারা । 

    আচ্ছা দিদি , কী করবে ভাই তারা

    জন্ম লাগি গিয়েছে যার চোখ । 

    কাদার সুখ যে বারণ তাহার - ছাই ! 

    কাঁদতে পেলে বাঁচত সে যে ভাই , 

    কতক তবু কমত যে তার শােক । 


    ‘ চোখ গেল'- তার ভরসা তবু আছে 

    চক্ষুহীনার কী কথা কার কাছে । 


    টানিস কেন ? কিসের তাড়াতাড়ি 

    সেই তাে ফিরে যাব আবার বাড়ি , 

    একলা - থাকা- সেই তাে গৃহকোণ 

    তার চেয়ে এই স্নিগ্ধ শীতল জলে 

    দুটো যেন প্রাণের কথা বলে 

    দরদ - ভরা দুখের আলাপন ; 

    পরশ তাহার মায়ের স্নেহের মতাে 

    ভুলায় খানিক মনের ব্যথা যত ! ঠাকুরঝি – ননদ



    Tag: অন্ধবধূ যতীন্দ্রমোহন বাগচী কবিতা,  কবিতা অন্ধবধূ,  Kobita Andhobodhu Jotindromohon Bagchi

    Previous Post Next Post