Class 6 Islam And Moral Education Assignment Answer 2021 (7th Week) -প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত যে সকল ইবাদত করা যায় , তার একটি তালিকা তৈরি কর

 

Class 6 Islam And Moral Education Assignment Answer 2021 (7th Week) -প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত যে সকল ইবাদত করা যায় , তার একটি তালিকা তৈরি কর ।

       
       
              

    প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত যে সকল ইবাদত করা যায় , তার একটি তালিকা তৈরি কর ।

    Class 6 Islam And Moral Education  Assignment Answer 2021 (7th Week) 

    ষষ্ঠ শ্রেণির ৭ম সপ্তাহের ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১

    উত্তরঃ ইবাদত আরবি শব্দ । এর অর্থ দাসত্ব বা আনুগত্য । আল্লাহর দাসত্ব ও আনুগত্যই হলাে ইবাদত । ইসলামি পরিভাষায় আল্লাহর সকল আদেশ - নিষেধ মেনে চলার নামই ইবাদত । মহান আল্লাহ আমাদের সৃষ্টি করেছেন । তিনিই আমাদের লালনপালন করেন । তিনিই আমাদের রব । আমরা তার বান্দা । মহান আল্লাহ তা'য়ালা আমাদের সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে তৈরি করেছেন । আল্লাহর দেওয়া অফুরন্ত নিয়ামত ভােগ করার পর এর শুকরিয়া ( কৃতজ্ঞতা ) আদায় করতে হবে । নিয়ামতের শুকরিয়া আদায় করে আল্লাহর দেওয়া বিধানমতাে চলার নামই ইবাদত। আমরা আল্লাহর আদেশমতাে চলব এবং তারই ইবাদত করব । পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন : 
    “ এবং তুমি তােমার ত্রুটির জন্য ক্ষমা প্রার্থনা কর এবং সকাল - সন্ধ্যায় তােমার প্রতিপালকের সপ্রশংস পবিত্রতা ও মহিমা ঘােষণা কর । ” ( সূরা আল - মু'মিন , আয়াত : ৫৫ ) 

    ইবাদতকে তিন ভাগে ভাগ করা যায় ; 

    1.  ইবাদতে বাদানি বা শারীরিক ইবাদত , 
    2. ইবাদতে মালি বা আর্থিক ইবাদত , 
    3.  ইবাদতে মালি ও বাদানি বা শরীর ও অর্থ উভয়ের সংমিশ্রণে ইবাদত ।
    শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গের সাহায্যে যে ইবাদত করা হয় তাকে বলা হয় ইবাদতে বাদানি বা শারীরিক ইবাদত । যথা- দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামায আদায় করা ও রমযান মাসে রােযা রাখা । ইবাদতের মধ্যে শারীরিক ইবাদত সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ । অর্থের দ্বারা যে ইবাদত করতে হয় সেগুলােকে বলা হয় ইবাদতে মালি বা আর্থিক ইবাদত । যেমন : যাকাত দেওয়া , সাদকা ও দান - খয়রাত করা ইত্যাদি ।

    উল্লিখিত দুই প্রকার ইবাদত ছাড়াও এমন কিছু ইবাদত আছে যা শুধু শরীর দ্বারা কিংবা অর্থ দ্বারা করা যায় না । বরং শরীর এবং অর্থ উভয়ের প্রয়ােজন হয় যেমন : হজ করা , জিহাদ করা ইত্যাদি ।  পবিত্রতার আরবি প্রতিশব্দ ' তাহারাতুন ' । ওযু , গােসল ইত্যাদির মাধ্যমে পবিত্রতা অর্জন করা যায় । ইবাদতের জন্য পবিত্র থাকা একান্ত প্রয়ােজন । পবিত্র না হয়ে নামায আদায় করা যায় না । এ প্রসঙ্গে মহানবি ( স ) বলেন , " পবিত্রতা ব্যতীত নামায কবুল হয় না এবং আত্মসাতের মাল সাদাকা ( দান ) হয় না । " ( মুসলিম )

    পবিত্র থাকলে শরীর সুস্থ থাকে । মন প্রফুল্ল থাকে । লেখাপড়া ও কাজকর্মে মন বসে । আল্লাহ তায়ালাও পবিত্রতা অর্জনকারীদের ভালােবাসেন। 

    ওযু আরবি শব্দ । এর অর্থ সুন্দর , পরিষ্কার ও স্বচ্ছ । ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায় শরীর পবিত্র করার নিয়তে পবিত্র পানি দিয়ে শরিয়তের নিয়ম অনুযায়ী নির্দিষ্ট অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ধােয়ার নামই ওযু । ওযুর গুরুত্ব ওযুর প্রয়ােজনীয়তা ও গুরুত্ব বর্ণনা করে পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে – “ যারা ইমান এনেছ জেনে রেখাে , যখন তােমরা নামাযের জন্য দাঁড়াবে তার আগে নিজেদের মুখমণ্ডল ধুয়ে নেব , তােমাদের দুই হাত কনুই পর্যন্ত ধুয়ে নেবে , মাথা মাসেহ্ করবে এবং উভয় পা গিরাসহ ধুয়ে নেবে । " ( সূরা আল - মায়িদা , আয়াত : ৬ ) 

    ' তায়াম্মুম ' আরবি শব্দ । এর অর্থ ইচ্ছে করা । ইসলামি পরিভাষায় পবিত্র মাটি বা ঐ জাতীয় পবিত্র বস্তু ( যেমন : পাথর , চুনা , বালি ইত্যাদি ) দ্বারা পবিত্র হওয়ার নিয়তে মুখমণ্ডল ও উভয় হাত কনুইসহ মাসেহ্ করাকে তায়াম্মুম বলে । তায়াম্মুম ওযু ও গােসল উভয়ের পরিবর্তে করা যায় । বস্তুত পবিত্রতা অর্জনের প্রকৃত মাধ্যম হলাে পানি । আল্লাহ তায়ালা তার বান্দাদের জন্য প্রচুর পরিমাণে পানি সরবরাহ করে রেখেছেন। তথাপি এমন অবস্থাও সৃষ্টি হতে পারে , যে পানি পাওয়া যাচ্ছে না অথবা পাওয়া গেলেও পানি ব্যবহারে রােগবৃদ্ধি বা প্রাণনাশের আশঙ্কা রয়েছে । এসব অবস্থায় আল্লাহ তায়ালা মাটি দিয়ে পবিত্রতা অর্জনের অনুমতি দিয়েছেন ।

    ‘ গােসল ' আরবি শব্দ । এর অর্থ ধৌত করা । ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায় পবিত্রতা অর্জন ও আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে পবিত্র পানি দ্বারা সমস্ত শরীর ধােয়াকে গােসল বলে । 

    গােসলের ফরজ তিনটি । যথা 

    ১. গড়গড়া করে কুলি করা । 

    ২. নাকের নরম জায়গা পর্যন্ত পানি পৌছানাে । 

    ৩ , সমস্ত শরীর পানি দিয়ে ধােয়া ।

    প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত যে সকল ইবাদত করা যায় তার একটি তালিকা প্রস্তুত করা হলাে : 

    ১. নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করা । 

    ২. প্রত্যেক দিন কুরআন মাজীদ তিলাওয়াত করা ।   

    ৩. খেতে বসলে ' বিসমিল্লাহ ' বলে খাওয়া শুরু করা । তাহলে যতক্ষণ খাওয়ার মধ্যে থাকবাে ততক্ষন আল্লাহ তা'আলার রহমত পেতে থাকবাে । এটি হচ্ছে এক ধরনের ইবাদত ।

    ৪. পড়ার সময় ' বিসমিল্লাহ বলে পড়া শুরু করা । তাহলে যতক্ষণ পড়ালেখা করবাে ততক্ষণই তা ইবাদত হিসেবে গণ্য হবে । 

    ৫. স্কুলে যাবার সময় ' বিসমিল্লাহ ' বলে যাত্রা শুরু করা । তাহলে রাস্তাঘাট এর সকল বিপদ - আপদ থেকে আল্লাহ আমাদের রক্ষা করবেন । 

    ৬. রাস্তায় চলাচলের সময় যদি দেখি একজন অন্ধ লােক রাস্তা পার হতে পারছে না তাহলে তাকে হাত ধরে রাস্তা পার করে দিলেও তা আল্লাহ তা'য়ালার নিকট ইবাদত হিসেবে গণ্য হবে । 

    ৭. ঘুমানাের সময় ঘুমের দোয়া পড়ে ঘুমানাে । তাহলে যতক্ষণ ঘুমিয়ে থাকব ততক্ষণ তা মহান আল্লাহ তা'আলার নিকট ইবাদত হিসেবে গণ্য হবে । 

    এমনিভাবে সব সময় দিন রাত ২৪ ঘন্টা আমরা ইবাদতে মশগুল থাকতে পারব । ইবাদত করলে মহান আল্লাহ তা'আলা খুশি হন । এতে দুনিয়ার জীবন সুখময় হয় । পরকালে পরম শান্তিময় স্থান জান্নাত লাভ করা যায় । আর যারা ইবাদত করে না , আল্লাহর নির্দেশিত পথে চলে না , আল্লাহ তাদের প্রতি অসন্তুষ্ট হন । তারা দুনিয়াতে শান্তি পায় না । পরকালেও তাদেরকে জাহান্নামের কঠোর শাস্থি ভোগ করতে হবে।

    Tag:প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত যে সকল ইবাদত করা যায় , তার একটি তালিকা তৈরি কর ,Class 6 Islam And Moral Education  Assignment Answer 2021 (7th Week), ষষ্ঠ শ্রেণির ৭ম সপ্তাহের ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১

    Previous Post Next Post

    👇 সকল ক্লাসের এসাইনমেন্ট নোটিফিকেশন আকারে সহজে পেতে ডাউনলোড করুন আমাদের এপ্লিকেশন 

    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন