ইসলামী শরীয়তে পাত্রী দেখার নিয়ম | পাত্রী দেখার ইসলামিক নিয়ম

ইসলামী শরীয়তে পাত্রী দেখার নিয়ম | পাত্রী দেখার ইসলামিক নিয়ম

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠকবৃন্দ বন্ধুরা। আপনাদের সবাইকে Educationblog24.Com এ স্বাগতম। আশা করি আল্লাহর অশেষ রহমতে আপনারা সবাই অনেক ভালো আছেন। আজকে পোস্ট দ্বারা আপনারা জানতে পারবেন ইসলামি শরীয়ত অনুযায়ী পাত্রী দেখার নিয়ম।

আমরা যারা মুসলিম আছি তাদের করণীয় নিজের জীবনটাকে ইসলামী শরিয়ত অনুযায়ী পরিচালনা করা। আর আমাদের জীবনের সাথে জড়িয়ে আছে বিয়ে নামক একটা অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর এই বিয়ে কাজটা অবশ্যই আমাদের ইসলামিক নিয়ম অনুযায়ী করতে হয়। তার মধ্যে অন্যতম হলো বিয়ের জন্য পাত্রী নির্বাচন করা সেটা অবশ্যই ইসলামিক নিয়মে করা জু্রুরি। তো বন্ধুরা আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে আমরা আপনাদের মাঝে শেয়ার করবো ইসলামী শরীয়তে পাত্রী দেখার নিয়ম, পাত্রী দেখার ইসলামিক নিয়ম। আশা করি আমাদের পোস্টে দেওয়া তথ্য থেকে আপনাদের অনেক উপকার হবে। 


       
       

    ইসলামী শরীয়তে পাত্রী দেখার নিয়ম  

    আমাদের জীবনকে সুষ্ঠু এবং সুন্দর জীবন পরিচালনা করার জন্য ইসলাম ধর্ম অনেক শরীয়ত মোতাবেক কাজ করার নির্দেশ দিয়েছে। আর আমাদের অবশ্যই করণীয় ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক জীবনকে সুষ্ঠু এবং সুন্দর ভাবে পরিচালনা করা। আমাদের সবার জীবনে বিয়ে নামক যে বিষয় টা আছে সেটা অবশ্যই ইসলামিক নিয়মে করতে হয়। আর বিয়ে কাজ টা করার আগে পাত্রী নির্বাচনটাও ইসলামিক নিয়ম অনুযায়ী করতে হয়। বিয়ের জন্য পাত্রী নির্বাচনের ক্ষেত্রে ইসলামিক নিয়ম মেনে সব কাজ করাই উত্তম। ইসলামে বলা আছে, সব সময় সব কাজে হারাম থেকে বেচে থেকে হালালভাবে সবকিছু করতে হয়। আর এই বিয়ের জন্য পাত্রী নির্বাচনে হালাল কিছু পন্থা আছল যেটা আজকে আপনারা আমাদের এই পোস্ট দ্বারা জানতে পারবেন। বিয়ে হলো একটা শুভ কাজ তাই সেই কাজে ইসলামি নিয়ম মেনেই সব কাজ করাটাই সবচেয়ে উত্তম। 

    পাত্রী দেখার ইসলামিক নিয়ম

    আসুন আমরা সকলে পাত্রী দেখার কিছু ইসলামি নিয়ম জেনে নি। 

    আগে বিয়ের জন্য নিজের এবং পাত্রীর বয়স টা নিয়ম মতো মানিয়ে নিতে হবে। পাত্রী দেখতে যাওয়ার আগে পাত্রীর বিয়েতে মত আছে কিনা সেটাও জানা দরকার। পাত্রী দেখার সময় ভালোভাবে জেনে নিতে হবে পাত্রীর সকল বিষয় সম্পর্কে। তবে পাত্রী দেখার ক্ষেত্রে কোন আনুষ্ঠানিকতা না করাটাই ভালো। পাত্রী যে বিষয় গুলো গুরুত্বপূর্ণ সহকারে জানতে হবে সেগুলো হলো— মেয়েটি ভদ্র কিনা, মেয়েটি নামাজি কিনা, পাত্রীর আচার ব্যবহার কেমন, পাত্রী নিজের পর্দা ঠিক রাখে কিনা সেই সম্পর্কেও জানা জরুরি। সারা জীবন যার সাথে থাকবেন তার ভালো মন্দ সবদিক সঠিক ভাবে যাচাই করে নিতে হবে। 

    ইসলামিক নিয়মে

    ইসলামিক দৃষ্টিতে পাত্রী দেখার সময় শুধু পাত্র নিজেই দেখতে পারবে তাও পাত্রীর পর্দা রাখা অবস্থাই। পাত্রীকে দেখার জন্য শর্ত সাপেক্ষে দেখতে হবে। পাত্র ছাড়া পাত্রের আর কোন লোকজন পাত্রীকে দেখতে পারবে না। পাত্রীর সাথে পাত্র কথা বলবে নিজে কিন্তু কোন ধরনের স্পর্শ করা যাবে না। পাত্রীকে পর্দারত অবস্থাতেই দেখতে পারবে। নির্জনে পাত্র-পাত্রী একত্রে থাকা বৈধ নয়।পাত্রী দেখতে যাওয়ার সময় কোন ধরনের আনুষ্ঠানিকতা না করাটাই ভালো। পাত্রীকে পছন্দ না হলে কোনরুপ দোষারোপ করা যাবে না। পাত্রীকে এক নজর দেখা জায়েজ আছে। তবে ইসলামের শরিয়তের মতে, দীনদারি ওয়ালা মেয়েকে বিয়ের করাটাই উত্তম। তাই পাত্রী দীনদারি কিনা সেই সম্পর্কে অবগত হতে হবে। পাত্রী পছন্দ হলে পাত্রীর সম্মতি ও পরিবারের সম্মতি নিয়ে শীঘ্রই ইসলামিক নিয়ম মেনে বিবাহ কাজ সেরে ফেলতে হবে। 


    Tag: ইসলামী শরীয়তে পাত্রী দেখার নিয়ম, পাত্রী দেখার ইসলামিক নিয়ম

                                   
    Previous Post Next Post
    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন  

     

    আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন