এসএসসি/দাখিল (ভোকেশনাল) এসাইনমেন্ট ২০২১ উত্তর /সমাধান ৩য় সপ্তাহের ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবুল কাল্টিভিশন-১ (এসাইনমেন্ট ৩) | ২০২১ সালের এসএসসি/দাখিল (ভোকেশনাল) ৩য় সপ্তাহের ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবুল কাল্টিভিশন-১ এসাইনমেন্ট সমাধান ( ২য় পত্র)


    এসএসসি/দাখিল (ভোকেশনাল) এসাইনমেন্ট ২০২১ উত্তর /সমাধান ৩য় সপ্তাহের ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবুল কাল্টিভিশন-১ (এসাইনমেন্ট ৩)


    সমাধানঃ


    ১. সবজির শ্রেণিবিভাগঃ 


    শাক - সবজিকে বিভিন্নভাবে শ্রেণিবিভাগ করা যায় । যেমন- মৌসুমভিত্তিক , ব্যবহারভিত্তিক , উৎপত্তি ভিত্তিক , ভক্ষণযােগ্য ভিত্তিক , শেকড়ের গভীরতা অনুযায়ী , মাটির উপরে বা নিচে জন্মানােভিত্তিক , উদ্ভিদতাত্ত্বিক ইত্যাদি । 


    ক ) মৌসুম ভিত্তিক শ্রেণি বিভাগ ও মৌসুম অনুযায়ী বাংলাদেশের সবজিগুলােকে ৩ টি ভাগে ভাগ করা হয় । যেমন- 


    ( ১ ) রবি মৌসুমের সবজি- এ সবজি শীতকালে জনে থাকে । উদাহরণ ফুলকপি , বাঁধাকপি , পালংশাক , গাজর , লেটুস , শিম , লকপি , মুথা , টমেটো ইত্যাদি । 

    ( ২ ) খারিফ সবজি- এ সবজি গ্রীষ্ম ও বর্ষাকালে জন্মে থাকে । উদাহরণ চালকুমড়া , চিচিংগা , কিত্তা , ধুন্দল , ঢেড়শ , লা , ভাঁটা , পুঁইশাক , পটল , কচু , বরবটি ইত্যাদি । 

    ( ৩ ) বারমাসি সবজি- এ সবজি সারা বছর জন্মে থাকে । উদাহারণ বেজন , মিষ্টি কুমড়া , লালশাক , পেঁপে , শশা ইত্যাদি ।


    খ ) ব্যবহার ভিত্তিক শ্রেণিবিভাগ- সবজি কীভাবে ব্যবহার করা হবে তার ওপর ভিত্তি করে সবজিগুলােকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে । যেমন 


    ১। সালাদজাতীয় সবজি- এ সবজিগুলাে সাধারণত সালাদ হিসেবে ব্যবহৃত হয় । উদাহরণ শশা , গাজর , লেটুস , ক্যাপসিকাম , পেঁপে ইত্যাদি । 

    ২। তরকারিজাতীয় সবজি- এ সবজিগুলাে তরকারি রান্নার জন্য শুধু ব্যবহৃত হয় । উদাহরণ বেগুন , পটল , ঝিঙা , আলু , ধুন্দল ইত্যাদি । 

    ৩। ভর্তাজাতীয় খাবার তৈরির সবজি- এ সবজিগুলাে অনেক সময় ভর্তা তৈরি করে খাওয়া হয় । উদাহরণ ওলকচু , কাঁচাকলা , পেঁপে , বেগুন ইত্যাদি । 

    ৪। চাটনী তৈরির সবজি- এ সবজিগুলাে চাটনি তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয় । উদাহরণ- টমেটো , ধনিয়াপাতা , পুদিনা পাতা ইত্যাদি । 

    ৫। ভাজা খাবার তৈরির সবজি- এ সবজিগুলাে ভাজা খাবার তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয় । উদাহরণ বরবটি , করলা , শিম , লালশাক , পুঁইশাক ইত্যাদি । 

    ৬। স্যুপ তৈরির সবজি- এ সবজিগুলাে সুপ তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয় । উদাহরণ পিয়াজ পাতা , পুদিনা পাতা , গাজর , মৃটরশুটি ইত্যাদি । 


    গ ) উৎপত্তিভিত্তিক সবজি- বাংলাদেশে যে সমস্ত শাকসবজির চাষ হচ্ছে সেগুলােকে উৎপত্তিস্থলের ভিত্তিতে দেশি ও বিদেশি হিসেবে ভাগ করা যায় । যথা 

    ১ ) দেশি সবজি - পটল লালশাক কলমিশাক মি মিষ্টি কমানা কামীয় আটক ইলদি সিলারি ,

    ( ২ ) বিদেশী সবজি- কপিজাতীয় , লেটুস , সিলারী , গিমা কলমি , বীট , গাজর , ব্রোকলী , চিনা বাধাকপি ইত্যাদি ।

     

    ঘ) আহার উপযোগী ভিত্তিক- ফসলের প্রকারভেদ বিভিন্ন অংশ খাওয়া যায় । এর ভিত্তিতে সবজিগুলােকে কয়েকটি ভাগে ভাগ হয় । 

    ( ১ ) পাতাজাতীয় সবজি - সালশাক , পুঁইশাক , লেটুস , পার্সলি , সিলারি ইত্যাদি । 

    ( ২ ) ফলজাতীয় সবজি -বেগুন , টমেটো , কুমড়াজাতীয় , শিম , বরবটি ইত্যাদি । 

    ( ৩ ) কাল সবজি- আলু , মেটে আলু , শাহআলু ইত্যাদি । 

    ( ৪ ) কাগজাতীয় সবজি- ভঁটা , পানিকুলতা ইত্যাদি । 

    (৫ ) কচুজাঙ্গসবজি- মুখীকচু , ল , মনিকচু ইত্যাদি । 

    ( ৬ ) ফুলজাতীয় সবজি - ফুলকপি , ব্রোকলি , মিষ্টি কুমড়া ফুল , শাপলা ফুল , বকফুল ইত্যাদি । 

    ( ৭ ) বীজজাতীয় সবজি- শিম বীজ , কাঁঠালৰীজ , মটরগট ইত্যাদি । 


    ঙ ) শিকড়ের গজকাভিত্তিক সবজি- এ জাতীয় সবজিকে ২ ভাগে ভাগ করা হয় । যেমন- অঙীয় ও গজব শিকজাতীয় সবজি । 

    ১। অগীর শেকডযুক্ত সবজি বীট , গাজর ইত্যাদি । 

    ২। গভীর শিকযুক্ত সবজি ফুল , মেটে আলু ইত্যাদি । 

    চ ) জীৰলভিকজি ঞ্জীবনকালের ভিত্তিতে সব সবজিকে ৩ ভাগে ভাগ করা যায় । যেমন- 

    ( ১ ) বর্ষজীবী  

    ( ২ ) দ্বিবর্ষজীবী ও 

    ( ৩ ) বহুবর্ষজীবী 

    উপরে শ্রেনিবিভাগ ও তার ব্যাখাগুলো যা দেওয়া হয়েছে আপনারা এগুলো একটি ছকের মাধ্যমে তৈরি করবেন।


    ২.বীজের শ্রেণিবিভাগঃ 


    বীজ বলতে আমরা বীজত্বক দ্বারা আবৃত এবং সুপ্ত ভুণযুক্ত পরিণত , পরিপুষ্ট ও নিষিক্ত ডিম্বককে বীজ হিসেবে বুঝে থাকি । একটি সাধারণ বীজের ২ টি অংশ থাকে । যথা- বীজত্বক ও বীজলার বা কার্পেল । একটি বীতে বীজপত্রের সংখ্যা অনুসারে ২ টি লগে ভাগ করা যায় । যথা- একবীজপত্রী ও দ্বিবীজপত্রী । 


    ( ১ ) একবীজপত্রী- ধান , গম , স্বা , কলা , খেজুর , কচু ইত্যাদি । 

    ( ২ ) দ্বিবীজপত্রী- শিম , চিচিংগা , ধুন্দল , বেগুন , ছােলা , কঁঠাল ইত্যাদি । 

    এছাড়া আরও এক প্রকাজের উদ্ভিদ আছে যথা - বহুবীজপত্রী বীজ । উদাঃ পাইন । যে কোন বীজেরই একটি বা তার বেশি বীজপ থাকে । বীজপত্রের সংখ্যা যখন একটি থাকে তখন তাকে একবীজপত্রী বীজকল । আর বীজে বীজপত্রের সংখ্যা যখন দুটি থাকে তখন তাকে দ্বিবীজপত্রী শীল বলে ।





    ২০২১ সালের এসএসসি/দাখিল (ভোকেশনাল) ৩য় সপ্তাহের ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবুল কাল্টিভিশন-১ এসাইনমেন্ট সমাধান ( ২য় পত্র)



    Tagএসএসসি/দাখিল (ভোকেশনাল) এসাইনমেন্ট ২০২১ উত্তর /সমাধান ৩য় সপ্তাহের ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবুল কাল্টিভিশন-১ (এসাইনমেন্ট ৩),  ২০২১ সালের এসএসসি/দাখিল (ভোকেশনাল) ৩য় সপ্তাহের ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবুল কাল্টিভিশন-১ এসাইনমেন্ট সমাধান ( ২য় পত্র)

    Previous Post Next Post