ষষ্ঠ শ্রেণির ৭ম সপ্তাহের হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ও উত্তর ২০২১-অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণীসমূহ তােমার ব্যক্তি জীবনে কীভাবে প্রয়ােগ করবে তার একটি বর্ণনা তুলে ধর

ষষ্ঠ শ্রেণির ৭ম সপ্তাহের হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ও উত্তর ২০২১-অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণীসমূহ তােমার ব্যক্তি জীবনে কীভাবে প্রয়ােগ করবে তার একটি বর্ণনা তুলে ধর


       
       
       

    ষষ্ঠ শ্রেণির ৭ম সপ্তাহের হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ও উত্তর ২০২১

    এ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ

    অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণীসমূহ তােমার ব্যক্তি জীবনে কীভাবে প্রয়ােগ করবে তার একটি বর্ণনা তুলে ধর।

    সংকেত : শ্রীকৃষ্ণের প্রাসঙ্গিক কয়েকটি বাণী ব্যবহার করে তার ভিত্তিতে লিখতে হবে ।

    ৬ষ্ট শ্রেণির হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২১ (৭ম সপ্তাহ)

    শিরােনাম

    অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণী সমূহ আমার ব্যক্তি জীবনে প্রয়ােগ

    শ্রীমৎ ভগবত গীতায়ঈশ্বরের কাছে নিজেকে সমর্পণ করে এবং ফলের আশা নাকরে নিজের কাজ করতে বলা হয়েছে । অর্থাৎ কাজটাই বড় , ফল যাই হােক না কেন । কর্মফল এর কথা চিন্তা করতে থাকলে কাজের প্রতি একাগ্রতা আসে না । এভাবে ফলের আশা না করে কাজ করাকেনিষ্কাম কর্মবলে ।

    এ প্রসঙ্গে শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন কর্মণ্যেবাধিকারন্তে মা ফলেষুকদাচন । মাকর্মফলহেতুভূমা তে সঙ্গোহস্রকর্মণি ।
    (গীতা -২ / ৪৭)
    অর্থাৎ কর্মেই তােমার অধিকার , কর্মফলে কখনাে তােমার অধিকার নেই । কর্মফলে প্রতি তুমি আসক্ত হয়ে যেন নিজের কর্তব্যের প্রতি অবহেলা না করাে ।

    ভগবান শ্রীকৃষ্ণের এই বাণী মেনে আমি আর্তের সেবায় নিজেকে নিয়ােজিত রাখবাে কখনাে ফলের আশা করবাে না । বর্তমানে কোভিড -১৯ এর এই কঠিন পরিস্থিতিতে , আমি সকলকে সচেতন করব এবং সকল মানুষের সেবায় নিজেকে উজাড় করে দেব , কিন্তু তার পরিবর্তে আমি কখনাে কিছু পাওয়ার আশা করবনা । গীতা আমাদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়াবার প্রেরণা দেয় । কারণ স্বয়ং ভগবান যুগে যুগে দুষ্টের দমন , শিষ্টের পালন এবং ধর্মরক্ষার জন্য পৃথিবীতে অবতার রুপে আসেন।

    ।শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন যদা যদা হি ধর্মস্য গ্লানির্ভবতি ভারত । অভ্যুত্থানমধর্মস্য তদাত্মানং সৃজাম্যহম্ । পরিত্রাণায় সাধুনাং বিনাশয় চ দুষ্কৃতাং । ধর্মসংস্থাপনার্থায় সম্ভবামি যুগে যুগে ৷৷ (গীতা -৪ / ৭-৮) অর্থাৎ যখনই ধর্মের অধঃপতন হয় এবং অধর্মের অভ্যুত্থান তখনই সাধুদের পরিত্রান , দুষ্ট লােকদের বিনাশ এবং ধর্ম স্থাপন করার জন্য আমি এই পৃথিবীতে অবতীর্ণ হই।

    শ্রীকৃষ্ণুের এই বাণী থেকে আমি আমার ব্যক্তি জীবনে যা প্রয়ােগ করব তা হল , কখনাে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে মাথা নত করবনা , অন্যায়ের প্রতিবাদ করব । অন আত্মার ধ্বংস নেই । গীতার এই শিক্ষা আমাদের মৃত্যুকে ভয় না করে ভালাে কাজে এগিয়ে যাওয়ার সাহস যােগায়।

    গীতায় আরও বলা হয়েছে
    ১ শ্রদ্ধাবান ও সংযমীই জ্ঞানলাভের সমর্থ হয় ।
    ২। অনাসক্ত কর্মযােগী মােক্ষলাভ করেন ।
    ৩। জ্ঞানীভক্তই তাকে হৃদয় অনুভব করেন ।
    ৪। এই বিশালবিশ্বে যাকিছু আছে সবই ঈশ্বরের মধ্যে বিদ্যমান ।

    গীতার এই কথা থেকে আমি সংযম ও সাধনার দিকে মনােনিবেশ করব । জাগতিক বিষয়ের প্রতি নির্মোহ হওয়ার প্রেরণা পাই । ধর্ম অনুশীলনের কাজেবিচারে প্রবৃত্ত হই এবং অর্থহীন গতানুগতিক পথ পরিহার করে তত্ত্বের মর্মার্থ বুঝবার চেষ্টা করব ।

    পরিশেষে বলতে পারি , অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণী সমূহ শুনে আমি আমার ব্যক্তি জীবনকে সুন্দর ও পরিপূর্ণ করে তুলতে পারব । 

    Tag:ষষ্ঠ শ্রেণির ৭ম সপ্তাহের হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ও উত্তর ২০২১,অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণীসমূহ তােমার ব্যক্তি জীবনে কীভাবে প্রয়ােগ করবে তার একটি বর্ণনা তুলে ধর

    Previous Post Next Post

    👇 সকল ক্লাসের এসাইনমেন্ট নোটিফিকেশন আকারে সহজে পেতে ডাউনলোড করুন আমাদের এপ্লিকেশন 

    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন