শেখ রাসেল কবিতা ২০২৩ (৫ টি ছড়া) PDF| শেখ রাসেল কবিতা আবৃত্তি | শেখ রাসেল ছড়া

শেখ রাসেল কবিতা ২০২৩ (৫ টি ছড়া) PDF| শেখ রাসেল কবিতা আবৃত্তি | শেখ রাসেল ছড়া


আসছালামু আলাইকুম সম্মানিত পাঠকবৃন্দ সবাইকে আমাদের ওয়েবসাইটে স্বাগতম। আসা করি সবাই আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। প্রিয় পাঠক আজকে আমরা তোমাদের শেখ রাসেল নিয়ে ৫ টি কবিতা শেয়ার করবো। আসা কবিতাগুলো তোমাদের ভালো লাগবে।

   
       

    শেখ রাসেল কবিতা ২০২৩

    শেখ রাসেল কবিতাগুলো ভিবিন্ন প্রতিষ্ঠানে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে প্রতিযোগিতায় তোমাদের প্রয়োজন হবে।

     রাসেল আছে বুকের মাঝে-মহাদেব সাহা


    এক যে ছিল সোনার ছেলে রাসেল তার নাম

     তার জন্য ভোরের আকাশ কাঁদছে অবিরাম

     কাঁদছে নদী কাঁদছে সাগর কাদছে মেঘদল

     কোথায় গেল রাসেল সোনা সবার চোখে জল 

    রাসেল আছে বাংলাদেশের হৃদয়খানি জুড়ে 

    রাসেল আছে বুকের মাঝে যায় নি মোটেও দূরে


    রাসেল আছে ঐ তো দেখো শিশিরভেজা ঘাসে 

    রাসেল আছে বাংলাদেশের সকল ইতিহাসে

     রাসেল আছে পাখির ডাকে গোলাপফুলের ঘ্রাণে

     রাসেল আছে জয় বাংলা ফেব্রুয়ারির গানে

     রাসেল আছে সকল মায়ের দুচোখ ভরা জলে

     রাসেল আছে ভোরে জাগা শিশুর কোলাহলে।


    বুবুর চোখে জল- রাশেদ রউফ


    একটি দোয়েল গাছের শাখায় বিষণ্ণতা দেখে

     পায়রাগুলো পাখসাটে না ধানমণ্ডির লেকে।

     কুকুরটাও ইচ্ছে মতো ভাঙে না

     আড়মোড়া স্বপ্নেও কেউ ছোটায় না আর পঙ্খিরাজের ঘোড়া।


    পায়রাগুলো নোটন নোটন জোটন বাঁধতো মাঠে

     হাঁসের ছানা নায়ের মতো খেলতো পুকুর ঘাটে।

     ওরা এখন কেউ খেলে না, নাচে না ধেই ধেই 

    কারণ ওদের খেলার সঙ্গী রাসেল সোনা নেই।


    যার জন্যে এই অরণ্যে উঠতো কলরব

     যে পেতো মা বাবা ভাইয়ের আদর সোহাগ সব

     দস্যুরা তার লুট করেছে জীবন মায়া সুখ

     গুলির পরে গুলি ছুঁড়ে ঝাঁঝরা করে বুক।


    রাসেল রাসেল কোথায় তুমি, কোথায় করো বাস

     তোমার দিকে তাকিয়ে সবাই মাসের পরে মাস।

     তোমার জন্য আকাশ কাঁদে, বাতাস কাঁদে হুহু 

    ,কাঁদে পাখি গাছগাছালি নদী মুহুর্মুহু ।


    নেই উচ্ছ্বাস, শ্বাস-প্রশ্বাস, নেই তো কোলাহল

     তোমার জন্য কাঁদছে স্বদেশ, বুবুর চোখে জল।


     ধানমন্ডির বুকে -রাশেদ রউফ


    মুয়াজ্জিনের আজান যখন সুবেহ সাদিক খোঁজে

     একচক্ষু দানব তখন কাপড়ে মুখ গোঁজে। 

    নির্লোম বুক, দমকা বুলেট, শাণিত খঞ্জর

     কাঁপতে থাকে ধানমণ্ডির বত্রিশ নম্বর


    প্রিয় বাড়ি, যার রয়েছে অনেক ইতিহাস, 

    সেই বাড়িতে উঠলো ভেসে রক্তভেজা লাশ ।

     লাশের ওপর দানব হাসে বীভৎস ঘর্ঘর-

     রক্তে রক্তে দেশ হয়ে যায় কারবালা প্রান্তর।


    মহরমের মাতম শুনি ধানমণ্ডির বুকে 

    লেকের পানি নিথর চোখে কান্না ঝরায় দুখে 

    শোকের মাতম ছড়িয়ে পড়ে, উধাও শান্তি-সুখ

     বুলেটবিদ্ধ বঙ্গবন্ধু, বাংলা মায়ের মুখ -


    তার সঙ্গে একটি শিশুর রক্তস্রোতে ভেসে

     নিসর্গ নেয় লাল রঙা বেশ সারা বাংলাদেশে।

     আকাশে নেই সূর্য, তবু রুদ্র খরতাপ 

    কেমন ছিল সেই শিশুটি? 'নিষ্পাপ! নিষ্পাপ!'


    রাসেল নামের সেই শিশুটির জন্য আমার মন-

     বিলাপ করে হাওয়ায় হাওয়ায়, দুঃখ সারাক্ষণ।


    বঙ্গবন্ধুর চোখের মণি-রাশেদ রউফ


    আগুন চাপা দুঃখ বুকে এগিয়ে চলি আমি 

    একটু দাঁড়াই, একটু হাঁটি, আবার একটু থামি

    আমি শুনি কান্নার সুর হাওয়ার মতো হু হু 

    তার সঙ্গে আকাশ নদী কাঁদছে মুহুর্মুহু।


    কার জন্যে কাঁপছে পাহাড়, কাঁদছে বাড়িঘর 

    ধানমণ্ডির লেক হয়েছে কারবালার প্রান্তর! 

    একটি ছেলে ছিল, এখন সেই ছেলেটি নেই 

    তার জন্যে কান্না এমন, হারিয়ে ফেলি খেই। 

    সেই ছেলেটি প্রিয় রাসেল - আদরমাখা মুখ

    বঙ্গবন্ধুর চোখের মণি-বাংলাদেশের বুক।


     এমন রাসেল -আজিজ রাহমান

    রাসেল রাসেল রাসেল কই মাঠে-ঘাটে কী হইচই! 

    সঙ্গী ছিল সাইকেল তার পাখির সাথে একাকার

    বাবার হাতে হাত ধরা স্বপ্নে স্বপ্নে মন গড়া আনন্দে 

    তার কাটতো ঠিক মনটা ছিল মানবিক।

    এমন গর্বের রাসেল এই দেশটির প্রাণ বুঝল যেই ঘাতক 

    সেনা হুংকারে গুলির ঝাঁকে প্রাণ কাড়ে।

    দেশ কাঁপানো হয়নি আর চুরমার হয় স্বপ্ন তার।

     স্বপ্ন নায়ক রাসেল তাই এমন রাসেল আরও চাই।


    Tag: শেখ রাসেল কবিতা ২০২৩ (৫ টি ছড়া), শেখ রাসেল কবিতা আবৃত্তি


                                   
    Previous Post Next Post
    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন