খাদিজাতুল কুবরা জীবনী pdf | খাদিজা রাঃ এর জীবনী বই | Ma khadijar jiboni kahini

 

খাদিজাতুল কুবরা জীবনী pdf | খাদিজা রাঃ এর জীবনী বই | Ma khadijar jiboni kahini

   
       

    খাদিজা রাঃ এর জীবনী বই 

    নারীকুল শিরোমণি উম্মুল মু'মিনীন হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন যে , “ আখেরী নবীর স্ত্রীদের মধ্যে ( সত্য ও ন্যায়ের প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে ) হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহার প্রতি আমার যে ঈর্ষা ছিলো অন্য কারো প্রতি তা ছিলো না । অথচ আমি তাঁকে কখনো দেখিনি । বিশ্বনবী প্রায়ই তাঁর কথা স্মরণ করতেন বলেই আমি তাঁকে ঈর্ষা করতাম । ” 

    উপরোল্লিখিত বাক্যগুলো বিখ্যাত হাদীসের কিতাব মেশকাত শরীফের একটি হাদীসের প্রথমাংশের অনুবাদ । এ হাদীস আমাদের সেই সম্মানিয়া মা বর্ণনা করেছেন , যার জ্ঞান গরিমা , ইজতিহাদী প্রতিভা এবং শ্রেষ্ঠত্বের কথা হাদীস গ্রন্থসমূহে অসংখ্য স্থানে উল্লিখিত আছে । এই সর্বগুণ সম্পন্না মহীয়সী স্ত্রীর উপস্থিতি সত্ত্বেও হযরত রাসূলুল্লাহর বিবি খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহার কথা বার বার স্মরণ করার দ্বারা এটাই প্রমাণিত হয় যে , হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা অসাধারণ গুণাবলী এবং যোগ্যতার অধিকারিণী ছিলেন । আসুন এখন আমরা দেখি কি কারণে আখেরী নবী তাঁকে এত অধিক স্মরণ করতেন : 

    হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা কি অসাধারণ রূপবতী ও সৌন্দর্যের অধিকারিণী মহিলা ছিলেন । তাঁর রূপ ও সৌন্দর্য সম্পর্কে হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা আর একটু অগ্রসর হয়ে বলেন : “ হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা একজন বিগত যৌবনা বৃদ্ধা মহিলা ছিলেন । ” অন্যান্য হাদীস দ্বারাও জানা যায় যে , উম্মুল মু'মিনীনদের মধ্যে খোদ হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা , হযরত সুফিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহা এবং হযরত যয়নব রাদিয়াল্লাহু আনহা বেশী সৌন্দর্যের অধিকারিণী ছিলেন । সাথে সাথে আমাদের একথাও স্মরণ রাখা দরকার যে , বাহ্যিক ও দৈহিক সৌন্দর্য হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে কারো প্রতি আকৃষ্ট করাতে পারেনি । এখন প্রশ্ন হলো , তাহলে কি কারণে হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁকে এত অধিক স্মরণ করতেন ?

     হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা জ্ঞানের দিক দিয়ে কি শীর্ষস্থানীয়া ছিলেন ? তাও ছিলেন না । কেননা এ সম্পর্কে কোথাও কোনো উল্লেখ পাওয়া যায় না । সকল মুহাদ্দিস এ ব্যাপারে একমত যে , জ্ঞান ও গুণের দিক দিয়ে হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদিয়াল্লাহু আনহা শ্রেষ্ঠ সাহাবীদের মধ্যেও প্রথম কাতারের । এত জ্ঞানী - গুণী স্ত্রীর উপস্থিতিতেও কেন হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহাকে স্মরণ করতেন ? 

    উন্মুল মু'মিনীন হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা কি ধন - সম্পদ ও বংশ মর্যাদার দিক থেকে শীর্ষস্থানীয়া ছিলেন ? হ্যাঁ তাঁর মধ্যে এই গুণাবলী ছিল । তাই বলে অন্যান্য উম্মুল মু'মিনীন এই ব্যাপারে কেউ কম ছিলেন না । হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা মক্কার অন্যতম নেতা ও খলীফা হযরত আবু বকর রাদিয়াল্লাহু আনহুর কন্যা ছিলেন । হযরত আবু বকর রাদিয়াল্লাহু আনহু শ্রেষ্ঠ দাতা , গরীব দুঃখীদের প্রতিপালক এবং বংশ মর্যাদায় শ্রেষ্ঠ ছিলেন । হযরত সুফিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহা খায়বারের সর্দারের কন্যা এবং হযরত হারুন আলাইহিস সালামের বংশধর ছিলেন । হযরত হাফসা রাদিয়াল্লাহু আনহা ফারুকে আযম হযরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর কন্যা ছিলেন এবং হযরত উম্মে হাবিবা রাদিয়াল্লাহু আনহা মক্কার সরদার আবু সুফিয়ানের কন্যা ছিলেন । এভাবে অন্যান্য সব উন্মুল মু'মিনীন বংশ , মর্যাদা ও ধন - সম্পদে শীর্ষস্থানীয়া ছিলেন । হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আত্মীয়তা , মান - মর্যাদা ও বংশ - গৌরব সব ক্ষেত্রেই আরবের শ্রেষ্ঠ এবং শীর্ষস্থানীয় গোত্রসমূহের সাথে সম্পর্কযুক্ত ছিলো । এটা স্পষ্ট যে , কেবল মাত্র হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা একাই এ সমস্ত গুণাবলীর অধিকারিণী ছিলেন না । তাছাড়া এটাও প্রশ্ন যে , ধন - সম্পদ ও বংশ মর্যাদাই কি হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ভাল লাগা না লাগা , পসন্দ অপসন্দের মাপকাঠি হতে পারে ? যখন আমরা দেখতে পাই সমগ্র আরববাসীর পক্ষ থেকে কুরাইশ সরদার উত্বা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ইসলামের প্রচার ও প্রসার কার্যের ব্যাপারে শিথিলতা এবং সমঝোতার প্রশ্নে প্রস্তাব দিয়েছিলেন যে , যদি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইসলাম প্রচারের ক্ষেত্রে আপোষে রাজী হন , তবে তার বিনিময়ে তারা তাঁকে আরবের সবচেয়ে সুন্দরী মহিলা , অগণিত ধন - সম্পদ এবং গোটা আরবের কর্তৃত্ব দিতে প্রস্তুত । কিন্তু মাহবুবে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ প্রস্তাব শোনা মাত্রই দৃঢ়তার সাথে প্রত্যাখ্যান করলেন । যদি এ লোভনীয় প্রস্তাবগুলো আকর্ষণের কারণ না হয়ে থাকে , তবে এমন কি কারণ থাকতে পারে , যার জন্য হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহাকে এত অধিক স্মরণ করতেন ? 

    এ সমস্ত বিচার - বিশ্লেষণের পরে হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহা এত প্রিয়পাত্রী হওয়ার আসল কারণ সম্পর্কে হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার বর্ণিত একটি হাদীসের শেষাংশের দিকে ফিরে যাব । সেখানে তিনি বলেছেন যে , বিশ্বনবী এরশাদ করেছেন : “ আল্লাহর কসম তিনি আমাকে খাদিজার চেয়ে ভালো স্ত্রী দান করেননি । খাদিজা ঐ সময় আমার উপরে ( নবী হিসেবে ) বিশ্বাস স্থাপন করেছেন , যখন জনসাধারণ আমাকে অবিশ্বাস করেছে । তিনি আমাকে ঐ সময় ( দীনের প্রতিষ্ঠার জন্য ) ধন - সম্পদ দিয়েছেন , যখন কোনো ব্যক্তি আমাকে দিতে প্রস্তুত ছিলো না । ” অন্য এক হাদীসে হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার বর্ণনাতে পাওয়া যায় যে , “ যখন আমার কোনো সাহায্যকারী ছিল না , তখন তিনি ( ইকামাতে দীনের জন্য ) আমাকে সাহায্য করেছেন । ” 

    এখন এটা স্পষ্ট প্রমাণিত হলো যে , উপরোক্ত বিষয়ই তাঁকে বেশী বেশী স্মরণ করার প্রত্যক্ষ কারণ ছিল । যেদিন হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন , সে দিন থেকে আরম্ভ করে মৃত্যু পর্যন্ত তনু , মন , ধন দিয়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জন্য উৎসর্গীকৃত প্রাণ ছিলেন । অতপর ইসলাম গ্রহণের পরে তো সমগ্র জানমালই কুরবান করে দিয়েছিলেন । তার বাকী জীবনের প্রতিটি শ্বাস - প্রশ্বাস আমাদের একথার সত্যতা প্রমাণ করে । দীন প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে উম্মুল মু'মিনীনদের মধ্যে তাঁর উদাহরণ একমাত্র তিনিই ছিলেন । আজ দীন প্রতিষ্ঠার জন্য বিশ্বব্যাপী যে ইসলামী আন্দোলন চলছে সেখানে পুরুষদের পাশাপাশি মহিলারাও অংশ নিচ্ছেন । এ প্রেক্ষিতে হযরত খাদিজা রাদিয়াল্লাহু আনহার ঘটনাবহুল জীবন বৃত্তান্ত বার বার আমাদের সম্মুখে আসা উচিত । এজন্য যেন আমরা তাঁর অনুকরণীয় মহান আদর্শের মাধ্যমে সঠিক পথের সন্ধান পাই । যার অছিলায় আমরা আমাদের মনযিলে মকসুদে দৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে যেতে পারি । 

    নোটঃ বিস্তারিত জীবনী পড়তে নিচের বইটি ডাউনলোড করুন।

    খাদিজাতুল কুবরা জীবনী pdf

    Title  খাদিজাতুল কুবরা জীবনী PDF
    PDF Size

    1 Mb
      Total Page   33


    Ma khadijar jiboni kahini



    Tag:-খাদিজাতুল কুবরা জীবনী pdf খাদিজা রাঃ এর জীবনী বই, Ma khadijar jiboni kahini


                                   
    Previous Post Next Post

      আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন


    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন