কোমর ব্যথার ঔষধ এর নাম | কোমর ব্যথার কারণ ও প্রতিকার,ঘরোয়া উপায় | কোমর ব্যাথা সারানোর সহজ উপায়

কোমর ব্যথার ঔষধ এর নাম | কোমর ব্যথার কারণ ও প্রতিকার,ঘরোয়া উপায় | কোমর ব্যাথা সারানোর সহজ উপায়


আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠকবৃন্দ বন্ধুরা আপনাদের সবাইকে Educationblog24.Com এর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও স্বাগতম। আশা করি আল্লাহর অশেষ রহমতে আপনারা অনেক ভালো আছেন। 

প্রিয় পাঠকবৃন্দ বন্ধুরা আমাদের আজকের এই পোস্ট দ্বারা আপনারা জানতে পারবেন কোমর ব্যথার ঔষধ/উপায় ও ঘরোয়া পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। আশা করি কোমর ব্যথার ওষুধ ও উপায় এবং অন্যান্য তথ্য জেনে আপনাদের উপকার আসবে। 

আপনারা অনেকেই অনেক রকম ভাবে ইন্টারনেটের মাধ্যমে খোঁজাখুজি করছেন কোমর ব্যথার কারণ এবং কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় ও ঔষধ সম্পর্কে বিস্তারিত গুরুত্বপূর্ণ সব তথ্য জানতে চান। 

তাই শুধুমাত্র আপনাদের সুবিধার জন্য আজকে আপনাদের মাঝে এই পোস্টের মাধ্যমে শেয়ার করবো কোমর ব্যথার ঔষধ এর নাম, কোমর ব্যথার কারণ ও প্রতিকার,ঘরোয়া উপায়,  কোমর ব্যাথা সারানোর সহজ উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা। আশা করি আমাদের পোস্টে দেওয়া এই কোমর ব্যথার উপায়/ঔষধ গুলো সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়ে আপনাদের অনেক উপকার হবে। 


বিঃদ্রঃ অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন ধরনের ঔষধ সেবন করবেন না। 


    কোমর ব্যথার ঔষধ এর নাম  

    আমাদের কোমর ব্যথা দৈনন্দিন অনেক কাজ বা বিভিন্ন রোগের মাধ্যমে হয়ে থাকে। তাছাড়া বয়স বেড়ে যাওয়ার সাথে কোমর ব্যথা হওয়ার বিষয়টা লক্ষ্য করা যায়। 

    আসুন বন্ধুরা কোমর ব্যথা থেকে প্রতিকার পেতে কিছু ট্যাবলেট ঔষধের নাম জেনে আসি—

    ★Naprosyn (500mg)

    ★Seclo 40 (40mg)

    ★Naprox (500mg)

    ★Napro (500mg) 

    ★Diproxen (500mg) 

    ★Ecless (500mg) 

    ★Napro A (500mg) 

    ★Napryn ( 500mg) 

    ★Nuprafen (500mg) 

    ★Naspro (500mg) 

    ★Xenapro (500mg) 

    ★Sonap ( 500mg) 


    কোমর ব্যথার কারণ ও প্রতিকার

    আসুন কোমর ব্যথার কারণগুলো জেনে আসি—

    ★মাংসপেশি

    ★হাড়

    ★জোড়া

    ★লিগামেন্ট

    ★জোড়ার আবরণ

    ★শিরদাড়া বা ভারটিব্রাল কলাম

    ★ডিস্ক (দুই কশেরুকার মধ্যে থাকে) ও

    ★স্নায়ুর রোগ বা ইনজুরি।

    কোমর ব্যথা কারণ সম্পর্কে আসুন বিস্তারিত আলোচনা জেনে নি—

    ★মানুষের হাড়ের মধ্যে ফাঁকা জায়গা থাকে। এটি পূরণ থাকে তালের শাঁসের মতো ডিস্ক বা চাকতি দিয়ে। এ ডিস্ক যদি কোনো কারণে বের হয়ে যায়, তখন স্নায়ুমূলের ওপরে চাপ ফেলে। এর ফলে কোমরে ব্যথা হতে পারে।

    ★যারা বয়োবৃদ্ধ আছেন তাদের দীর্ঘদিন ধরে শরীর নাড়াচাড়া বা জয়েন্টস একই অবস্থায় থাকতে থাকতে মাংশপেশী শিকিয়ে যায়, জয়েন্টসগুলো শক্ত হয়ে স্নায়ুর উপর চাপ বৃদ্ধি করে ফলে ব্যথা হয়।

    ★অফিসে দীর্ঘক্ষণ বসে একই ভঙ্গিতে কাজ করেন। এতে দেখা যায়, কোমরের মাংস পেশি, কোমরের বিভিন্ন জোরা বা জয়েন্টস ও স্নায়ুতে চাপ তৈরি হয়। এরকম কিছুদিন চলতে থাকলে সেটা ব্যথায় রূপ নেয় ও পরবর্তীতে ব্যথা প্রচণ্ড হয়ে থাকে।

    ★অস্টিওপোরোসিস বা হাড় ক্ষয় রোগ। যাতে আমাদের শরীরের হাড়গুলো ক্যালসিয়াম ধরে রাখতে পারে না। যে কারণে হাড়গুলো নরম ও ভঙ্গুর হয়। আবার এতে আমাদের দুই কশেরুকার মাঝে যে নরম জেলির মতো পদার্থ থাকে বা ইন্টারভারটিব্রাল ডিস্ক থাকে তার উপর চাপ পড়ে। সেটা আবার আমাদের শরীরের দুই পাশের ব্যথা নিয়ন্ত্রণকারী স্নায়ুর ওপর চাপ বাড়ায় এবং কোমরে ব্যথা হতে পারে।

    ★অনেকেই আছেন যারা কোনো ভারী জিনিস সঠিক নিয়মে তোলেন না। ফলে মেরুদণ্ডে অস্বাভাবিক চাপ পড়ে এবং তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ব্যথা হয়।

    ★দীর্ঘক্ষণ ড্রাইভিং করলে বা বেশি সামনে ঝুঁকে গাড়ি চালালে কোমর ব্যথা হতে পারে।

    ★অস্বাভাবিক পজিশনে ঘুমানোর কারণে অনেকেই ব্যথায় আক্রান্ত হতে পারেন।


    আসুন নিম্নোক্ত কিছু কোমর ব্যথার প্রতিকার উপায় সম্পর্কে জেনে আসি —

    ★হালকা ব্যথা হলে অবহেলা না করে ওষুধ এবং পূর্ণ বিশ্রাম নিতে হবে। কোমর ব্যথার বিভিন্ন মলম ব্যবহার করতে পারেন। তবে মালিশ করা যাবে না।

    ★ব্যথা তিন দিনের বেশি স্থায়ী হলে অবশ্যই একজন ফিজিওথেরাপিস্ট কিংবা নিউরোলজিস্টের পরামর্শ নিতে হবে। ব্যথা তীব্র হলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী হাসপাতালে ভর্তি থেকে ফিজিওথেরাপি নিতে হয়।

    ★বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মেরুদণ্ডের এলাইনমেন্ট/পজিশন, হার-পেশীর সক্ষমতা এবং মেরুদণ্ডের স্টেবিলিটি ঠিক রাখতে পারলে কোমর ব্যথা থেকে দীর্ঘমেয়াদে ভালো থাকা যায়।

    ★সাধারণ মানের ব্যথার ওষুধ খেতে পারেন, তারমধ্যে প্যারাসিটামলই সবচেয়ে ভালো। প্রয়োজনে ব্যথানাশক ওষুধ ও সাপ্লিমেন্ট খেতে পারেন।

    ★দীর্ঘসময় একই স্থানে বসে না থেকে কিছু সময় হাটা চলা করুন। ঘুমানোর অভ্যাস বদল করুন। এবং যেকোনো অতিরিক্ত ভারি কাজ বা জিনিস থেকে বিরত থাকুন। 


    কোমর ব্যথার ঘরোয়া উপায়  

    কোমর ব্যথার ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত কিছু ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জেনে নিন—

    ★ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়াম জাতীয় খাদ্য- প্রতিদিন নিয়ম করে দুধ, ঘি, চিজ, ফল, শাকসবজি, বাদাম ইত্যাদি খেলে কোমরের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

    ★হলুদ— দুধের সঙ্গে নিয়ম করে হলুদ খেলে কোমরের ব্যথা অনেকটাই কমতে পারে।

    ★মেথি বীজ— মেথি বীজের গুড়ো দুধের সঙ্গে মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। ব্যথার জায়গায় এই মিশ্রণ লাগালে উপকার পাবেন।

    ★অ্যালোভেরা- প্রতিদিন নিয়ম করে অ্যালোভেরা শরবত খেলে কোমরের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

    ★সেঁক দিন- কোমরের যে জায়গায় ব্যথা সেখানে সেঁক দিলে যন্ত্রণা থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যাবে।

    ★আদা- আদাতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে। এই পটাশিয়ামের অভাবের ফলে নার্ভের সমস্যা দেখা দেয়। প্রতিদিন নিয়মিত আদা খেলে কোমরের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।


    কোমর ব্যাথা সারানোর সহজ উপায়

    কোমরের ব্যথা সারানোর কিছু সহজ উপায় নিচে দেওয়া হলো—

    ★একই স্থানে বসে বা শুয়ে না থেকে হাঁটাচলা বা ওঠা-বসা করলে কোমর ব্যথা সাধারণত হয় না। 

    ★ঝুঁকে বা মেরুদণ্ড বাঁকা করে কোনো কাজ করবেন না।

    ★নিয়মিত শারীরিক অর্থাৎ কায়িক পরিশ্রম করতে হবে। শারীরিক শ্রমের সুযোগ না থাকলে ব্যায়াম অথবা হাঁটার যতটুকু সুযোগ আছে তাকে কাজে লাগাতে হবে।

    ★ঘাড়ে ভারী কিছু তোলা থেকে বিরত থাকুন। নিতান্তই দরকার হলে ভারী জিনিসটি শরীরের কাছাকাছি এনে কোমরে চাপ না দিয়ে তোলার চেষ্টা করুন।

    ★সব সময় শক্ত সমান বিছানায় ঘুমাতে হবে। ফোমের বিছানায় ঘুমানো যাবে না। 

    ★শারিরীক সব ধরনের ব্যায়াম করে শরীরকে সচল রাখতে হবে। এবং কোমর ব্যথা উপশমে ব্যায়াম অল্প সময় প্রতিনিয়ত করতে হবে। 



    Tag: কোমর ব্যথার ঔষধ এর নাম, কোমর ব্যথার কারণ ও প্রতিকার,ঘরোয়া উপায়,  কোমর ব্যাথা সারানোর সহজ উপায়

                                   
    Previous Post Next Post
    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন  

     

    আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন