কোন বিষয়ে পড়লে কি হওয়া যায় (মানবিক/আর্টস,বিজ্ঞান/সাইন্স,কমার্স/ব্যবসা শাখা)

আসছালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক পাঠিকা সবাই কেমন আছেন। আসা করি সবাই আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। বন্ধুরা আজকে আমরা তোমাদের গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো সেটা হলো কোন বিষয় পড়লে কি হওয়া যায়। এই প্রশ্নটা অনেকে করে থাকেন। তাই আজকে আমরা কোন বিষয়ে পড়লে কি হওয়া যায় এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করবো গুরুত্ব সহকারে পড়তে থাকুন আসা করি তোমাদের উপকারে আসবে। 

কোন বিষয়ে পড়লে কি হওয়া যায় (মানবিক/আর্টস,বিজ্ঞান/সাইন্স,কমার্স/ব্যবসা শাখা)


       
       

    কোন বিষয়ে পড়লে কি হওয়া যায়


    প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা একজন শিক্ষার্থী যখন মাধ্যমিক পর্যায় শেষ করে তখনি মাথার মধ্যে একটাই চিন্তা কোন বিষয় নিয়ে পড়বো। যারা বিজ্ঞান ও ব্যবসা বিভাগ থেকে পড়ে তাদের মোটামুটি লক্ষ জানা থাকে।কিন্তু সমস্যা হয়ে যায় তারা মানবিক বিভাগ থেকে পড়ে তাদের বিষয় যাচাই করাটা কস্টকর হয়ে যায়। কোন বিষয় নিয়ে পড়বো কোন বিষয় পড়লে কি হওয়া যায় ভবিষ্যতে কি কোন কাজে আসবো।এইসব মাথার মধ্যে ঘুড়তে থাকে আর যদি আপনার জানা থাকে কোন বিষয়টা পড়লে কি হওয়া যাবে তাহলে সহজে আপনি বিষয় নির্ধারণ করতে পারবেন। তাই আসুন আমরা জেনে নেই মানবিক বিভাগ থেকে পড়লে কি কি হতে পারবো। 


    মানবিক/আর্টস নিয়ে পড়লে কি কি হওয়া যায়

    ইংরেজি

    ইংরেজিতে পড়লে চাকরি নিয়ে টেনশনের কিছুই নেই। ইনফ্যাক্ট, আপনি যে সাবজেক্ট নিয়েই পড়েন না কেন, আপনি যদি ইংরেজিতে দক্ষ হন, তাহলে বেশিরভাগ চাকরির পরীক্ষায় আপনি পাশ করবেন।

    ইতিহাস/রাষ্ট্র বিজ্ঞান/বাংলা/অর্থনীতি

    অর্থনীতির প্রার্থীর ব্যাংক জব পাওয়ার ক্ষেত্রে কিছুটা সুবিধা পায়। এছাড়া বিসিএস এ শিক্ষা ক্যাডার ছাড়া অন্য কোথাও বিষয় ভিত্তিক চাকরি নেই। এগুলোকে তাই জেনারেল সাবজেক্ট বলা যায়।

    নৃবিজ্ঞ

    বিষয়টার প্রতি এনজিও গুলোর চোখ থাকে। আমার যত নৃবিজ্ঞানের পরিচিত আছে সবাই লাইফের কোন না কোন সময় এনজিওতে চাকরি করেছে। সমাজকল্যাণ/সমাজকর্ম বিষয়ের শিক্ষার্থীদের গার্মেন্টস সেক্টরে ওয়েলফেয়ার কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করার সুযোগ রয়েছে।

    আইন

    আইন বিষয়ের চাহিদা সব সময় ছিল, আছে এবং থাকবে। তবে আইন বিষয়ে পড়ার আগে সিদ্ধান্ত নিন আসলেই আইনজীবী হবেন কি না। নয়তো বিভিন্ন কোম্পানির লিগ্যাল এডভাইজর হতে হবে। কেননা সবাই আদালতে প্র্যাক্টিস করতে পারেন না। তবে জুডিসিয়াল সার্ভিসে ভালো সুযোগ আছে।

    সমজাকল্যাণ/সমাজকর্ম

    রানা প্লাজা দূর্ঘটণার পর বাইরের দেশের বায়াররা বিভিন্ন গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি গুলোতে কল্যাণ কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়ার ব্যাপারে চাপ দেয়। ফলে গার্মেন্টস গুলোতে ওয়েলফেয়ার অফিসার নামের একটা পদ সৃষ্টি হয়েছে। সমজাকল্যাণ/সমাজকর্ম বিষয়ের স্নাতকরা এই পদে অগ্রাধিকার পায়। স্যালারি মোটামুটি ভালোই।

    ব্যবসায় শিক্ষা/কমার্স, অনার্সে কমার্সের সাব্জেক্ট

    একাউন্টিং, মার্কেটিং, ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং, ম্যানেজমেন্ট এগুলো হল পিউর কমার্সের সাবজেক্ট। তবে এইচ এস সি তে কমার্স পড়লে একমাত্র বিজ্ঞান বিভাগ ব্যতীত আর্টেস সব সাবজেক্ট গুলোতে অনার্স পড়তে পাড়বেন।

    একাউন্টিং আর মার্কেটিং সাব্জেক্ট এর চাহিদা প্রচুর। ভালো ইউনিভার্সিটি থেকে পড়তে পারলে তো কথাই নাই। ম্যানেজমেন্ট নিয়ে পড়লে হিউম্যান রিসোর্স এর চাকরি পাওয়া যায়। ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং সাব্জেক্ট এর চাকরি শুধুমাত্র ব্যাংকই না অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান গুলোতেও আছে। কমার্সের সাবজেক্ট গুলো এমন যে, একদম এন্ট্রি লেভেলের জবে ঢুকে প্রতিষ্ঠার সিইও পর্যন্ত হওয়া যায়।

    একাউন্টিং

    প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের একাউন্ট্যান্ট দরকার। কাজেই একাউন্টিং পড়লে চাকরি পাওয়া যায় সহজে। একাউন্টিং পড়লে অনার্স শেষ করে যেকোনো একটা প্রফেশনাল ডিগ্রি যেমন- ACCA, FCMA নিতে পারলে ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট দ্রুত হয়। দেশের শীর্ষস্থানীয় কোম্পানি গুলোর কাছে এই প্রফেশনাল ডিগ্রী গুলোর গুরুত্ব অনেক। আপনি একটা সময়ে গিয়ে কোম্পানীর শীর্ষস্থানীয় পদে যেতে পারবেন।

    একাউন্ট্যান্টরা শুধুমাত্র টাকা পয়সার হিসেবেই রাখে না, তারা মালিক পক্ষকে কস্ট ম্যানেজমেন্ট করতে সাহায্য করে। কোম্পানীর ব্যয় কমাতে সাহায্য করে ফলে মালিক পক্ষ সব সময় এদের পছন্দ করে।

    মার্কেটিং

    যেকোনো কোম্পানির নাম বলুন না কেন, মালিক পক্ষ গুরুত্ব দেয় সব চেয়ে বেশি মার্কেটিং বিভাগ কে কেননা তারা পণ্য বিক্রি করে টাকা আনে। আমার সাবেক কর্মস্থলে (দেশের শীর্ষ স্থানীয় ওষুধ কোম্পানি) দেখেছি অন্যান্য সব ডিপার্টমেন্টের ম্যানেজাররা মার্কেটিং ডিভিশন কে কতটা ভয় পেত। মার্কেটিং থেকে যদি বলত অমুক প্রোডাক্ট আগামীকাল লাগবে, বাকি সব বাদ দিয়ে তাদের কথা আগে শুনতে হত। নইলে চাকরি থাকবে না। প্রোডাক্ট রিলিজ দিতে দেরি করায় অনেক ম্যানেজারের চাকরি চলে যেতে দেখেছি।

    যেহেতু মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট সেল করে টাকা আনে সেহেতু তাদের বেতন বোনাস অন্যান্য ডিপার্টমেন্টের চেয়ে বেশি হয়। প্রমোশনও বেশি হয়। এজন্য আমার মনে হয়, কমার্স পড়লে অনার্সে মার্কেটিং পড়া উচিৎ। অবশ্য, মার্কেটিং এর জন্য মাইন্ডসেট না থাকলে সেটা হিতে বিপরীত হতে পারে। কেননা মার্কেটিং জব অন্য জবের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। মার্কেটিং এর কাজের প্রেশার অন্যরকম।

    ম্যানেজমেন্ট

    ম্যানেজমেন্টে পড়লে সব চেয়ে বেশি জব পাওয়া যায় হিউম্যান রিসোর্স ডিপার্টমেন্টে। তবে এক্ষেত্রে অনার্সের পরে হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্টে এমবিএ করলে ভালো হয়। আমাদের দেশে এখন প্রচুর গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি আছে, এখানে হিউম্যান রিসোর্স ডিপার্টমেন্টে প্রচুর লোক লাগে। তাই ম্যানেজমেন্ট নিয়ে পড়লে বেশি দিন বসে থাকতে হয় না। তবে উপরের দিকে যাওয়া একটু স্লো। হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজার হিসেবে মালিক পক্ষরা এখনো আর্মি বা বিভিন্ন বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত অফিসারদের অগ্রাধিকার দেয়।

    ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং

    নাম দেখেই বুঝতে পারছেন ব্যাংকে এদের প্রায়োরিটি বেশি, বিশেষ করে প্রাইভাট ব্যাংক গুলোতে। এছাড়া নন ব্যাংকিং আর্থিক খাত গুলোতেও এরা ভালো নিয়োগ পায়। এক বড় ভাই সোনালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসারের চাকরি ছেড়ে ইউসিবি ব্যাংকে জয়েন করেছিলেন, উনি ঢাকা ইউনিভার্সিটির ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং এর ছাত্র ছিলেন। এখন বেশ ভালো পজিশনে আছেন।

    কমার্সের ক্ষেত্রে ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দেখে পড়া জরুরি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ মানেই পাস করা মাত্র দুর্দান্ত সব চাকরির অফার পাওয়া। বর্তমানে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে নর্থ সাউথ আর ব্র‍্যাক বিশ্ববিদ্যালয় বেশ ভালো পজিশনে আছে। যদি সামর্থ্য থাকে তাহলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরে এই দুই বিশ্ববিদ্যালয় পড়াটা বেস্ট হবে।

    বিজ্ঞান বিভাগে পড়ে কি চাকরি পাওয়া যাবে

    যদি ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার ইচ্ছা না থাকে তাহলে বলব বিজ্ঞানের মৌলিক বিষয় (ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, বোটানি, জুওলজি, গনিত) নিয়ে অনার্স পড়ার কোন মানে নেই। শুধু শুধু কষ্ট করতে হবে।

    ফার্মেসী

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক ইউনিটে এখনো ফার্স্ট চয়েস বেশিরভাগ প্রার্থী ফার্মেসি দেয়। এর কারন জব এভেইলেবিলিটি। বাংলাদেশের ফার্মাসিউটক্যালস সেক্টর পুরোটাই এদের নিয়ন্ত্রনে। আর গার্মেন্টসের পরে বাংলাদেশের সব চেয়ে সম্ভাবনাময় খাত হচ্ছে ফার্মা সেক্টর। পাশ করা মাত্রই চাকরি। বেতন বেশ ভালো। প্রমোশন ভালো। সত্যিকথা বলতে ব্যাংকিং জবের চেয়ে অনেক অনেক ভালো।

    কাজেই ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার না হতে পারলে ফার্মেসি পড়ুন। চাকরি নিয়ে ভাবতে হবে না।

    রসায়ন/প্রাণরসায়ন/ফলিত রসায়ন

    বিজ্ঞানের এই একটা সাব্জেক্ট যেটাতে আপনার জন্য প্রচুর চাকরি আছে। পাশ করে বের হওয়া মাত্র আপনি চাকরি পাবেন। এমনি মাস্টার্স না করেও চাকরি পাবেন। আমি নিজে রসায়নের ছাত্র। অনার্স শেষ করেই চাকরিতে ঢুকেছিলাম।

    বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যালস গুলোতে প্রতিবছর প্রচুর রসায়নের লোক নেয় ভবিষ্যতেও নিবে। এছাড়া গার্মেন্টের ইটিপিতের, ডাইয়িং হাউজ গুলোতে, বিভিন্ন কেমিকেল কোম্পানী গুলোতে অনেক চাকরি আছে। স্যালারিও খারাপ দেয় না। তবে প্রমোশন স্কোপ কম। সর্বোচ্চ ল্যাব ম্যানেরজার বা কিউসি ম্যানেজার হতে পারবেন। উপরের দিকে যাওয়ার সুযোগ নেই।

    ফিজিক্স বা পদার্থ বিজ্ঞান

    বাংলাদেশ এটমিক এনার্জি কমিশন আর বিসিএস আই আরে কিছু চাকরি আছে ফিজিক্সের। কিন্তু সেখানে স্বজনপ্রীতি আর ইউনিভার্সিটি প্রীতি অনেক বেশি।

    কিছু ইন্সট্রুমেন্ট সাপ্লাই কোম্পানী আছে যারা এপ্লাইড ফিজিক্স/ ফিজিস্কের ছাত্রদের নেয় (AQC, Technoworth, Tredsworth, Invent) কিন্তু সেটা সীমিত পরিমানে।

    গণিত/পরিসংখ্যান

    গনিতের এক শিক্ষকতা ছাড়া আলাদা কোন জব ফিল্ড নেই। তবে পরিসংখ্যানে আছে। বাংলাদেশ ব্যাংক, বিভিন্ন এনজিও গুলোতে পরিসংখ্যানের লোক নেয়।

    উদ্ভিদবিদ্যা/প্রানীবিদ্যা

    কৃষিবিষয়ক কিছু কোম্পানিতে কিছু চাকরি আছে। তবে সেটা খুবই কম।

    বিজ্ঞান বিভাগে পড়তে চাইলে অবশ্যই এপ্লাইড সাব্জেক্ট গুলোতে পড়বেন। যেমন- ইঞ্জিনিয়ারিং, মেডিকেল, কম্পিউটার সাইন্স, আইটি, কৃষি বিষয়ক সাব্জেক্ট গুলো। পিউর বিজ্ঞান সাব্জেক্ট নিয়ে পড়ে কোন লাভ নেই। পাচটা বছর শুধু শুধু কষ্ট করবেন।

    কৃষি বা এগ্রিকালচার/ভেটেরেনারি/পশুপালন/এগ্রি ইঞ্জিনিয়ারিং

    উপরের প্রতিটি সাব্জেক্টে অনেক চাকরি আছে। বিভিন্ন এগ্রো কোম্পানি গুলো এদের লুফে নেয়। বিশেষ করে যদি আপনি ভেটেরেনারি ডাক্তার হন তাহলে খুবই ভালো ভবিষ্যত অপেক্ষা করছে আপনার জন্য।

    বিসিএসে কৃষি ক্যাডারে তুলনা মূলক প্রতিযোগীতা কম হয়।

    ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে কোন চাকরি পাওয়া যাবে

    ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং

    ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বেশিরভাগ সময় ফার্স্ট প্রায়োরিটি পায়। এর কারন এর হিউজ চাকরির ক্ষেত্র। এমন কোন ফ্যাক্টরি নেই যেখানে বিদ্যুৎ লাগে না। এছাড়াও পাওয়ার সেক্টর তো আছেই। হাই স্যালারি, সুযোগ সুবিধা কি নেই এই সাব্জেক্টে!

    মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং

    সব ফ্যাক্টরিতে জব পাবেন। বিভিন্ন নামিদামী গাড়ির কোম্পানী গুলোতে জব পাবেন। আন্তর্জাতিকভাবে সুপরিচিত মোটর কোম্পানি গুলো বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছে, ফলে তাদের প্রচুর ম্যাকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার লাগবে।

    ফার্মেসী

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক ইউনিটে এখনো ফার্স্ট চয়েস বেশিরভাগ প্রার্থী ফার্মেসি দেয়। এর কারন জব এভেইলেবিলিটি। বাংলাদেশের ফার্মাসিউটক্যালস সেক্টর পুরোটাই এদের নিয়ন্ত্রনে। আর গার্মেন্টসের পরে বাংলাদেশের সব চেয়ে সম্ভাবনাময় খাত হচ্ছে ফার্মা সেক্টর। পাশ করা মাত্রই চাকরি। বেতন বেশ ভালো। প্রমোশন ভালো। সত্যিকথা বলতে ব্যাংকিং জবের চেয়ে অনেক অনেক ভালো।

    কাজেই ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার না হতে পারলে ফার্মেসি পড়ুন। চাকরি নিয়ে ভাবতে হবে না।

    রসায়ন/প্রাণরসায়ন/ফলিত রসায়ন

    বিজ্ঞানের এই একটা সাব্জেক্ট যেটাতে আপনার জন্য প্রচুর চাকরি আছে। পাশ করে বের হওয়া মাত্র আপনি চাকরি পাবেন। এমনি মাস্টার্স না করেও চাকরি পাবেন। আমি নিজে রসায়নের ছাত্র। অনার্স শেষ করেই চাকরিতে ঢুকেছিলাম।

    বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যালস গুলোতে প্রতিবছর প্রচুর রসায়নের লোক নেয় ভবিষ্যতেও নিবে। এছাড়া গার্মেন্টের ইটিপিতের, ডাইয়িং হাউজ গুলোতে, বিভিন্ন কেমিকেল কোম্পানী গুলোতে অনেক চাকরি আছে। স্যালারিও খারাপ দেয় না। তবে প্রমোশন স্কোপ কম। সর্বোচ্চ ল্যাব ম্যানেরজার বা কিউসি ম্যানেজার হতে পারবেন। উপরের দিকে যাওয়ার সুযোগ নেই।

    ফিজিক্স বা পদার্থ বিজ্ঞান

    বাংলাদেশ এটমিক এনার্জি কমিশন আর বিসিএস আই আরে কিছু চাকরি আছে ফিজিক্সের। কিন্তু সেখানে স্বজনপ্রীতি আর ইউনিভার্সিটি প্রীতি অনেক বেশি।

    কিছু ইন্সট্রুমেন্ট সাপ্লাই কোম্পানী আছে যারা এপ্লাইড ফিজিক্স/ ফিজিস্কের ছাত্রদের নেয় (AQC, Technoworth, Tredsworth, Invent) কিন্তু সেটা সীমিত পরিমানে।

    গণিত/পরিসংখ্যান

    গনিতের এক শিক্ষকতা ছাড়া আলাদা কোন জব ফিল্ড নেই। তবে পরিসংখ্যানে আছে। বাংলাদেশ ব্যাংক, বিভিন্ন এনজিও গুলোতে পরিসংখ্যানের লোক নেয়।

    উদ্ভিদবিদ্যা/প্রানীবিদ্যা

    কৃষিবিষয়ক কিছু কোম্পানিতে কিছু চাকরি আছে। তবে সেটা খুবই কম।

    বিজ্ঞান বিভাগে পড়তে চাইলে অবশ্যই এপ্লাইড সাব্জেক্ট গুলোতে পড়বেন। যেমন- ইঞ্জিনিয়ারিং, মেডিকেল, কম্পিউটার সাইন্স, আইটি, কৃষি বিষয়ক সাব্জেক্ট গুলো। পিউর বিজ্ঞান সাব্জেক্ট নিয়ে পড়ে কোন লাভ নেই। পাচটা বছর শুধু শুধু কষ্ট করবেন।

    কৃষি বা এগ্রিকালচার/ভেটেরেনারি/পশুপালন/এগ্রি ইঞ্জিনিয়ারিং

    উপরের প্রতিটি সাব্জেক্টে অনেক চাকরি আছে। বিভিন্ন এগ্রো কোম্পানি গুলো এদের লুফে নেয়। বিশেষ করে যদি আপনি ভেটেরেনারি ডাক্তার হন তাহলে খুবই ভালো ভবিষ্যত অপেক্ষা করছে আপনার জন্য।

    বিসিএসে কৃষি ক্যাডারে তুলনা মূলক প্রতিযোগীতা কম হয়।

    ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে কোন চাকরি পাওয়া যাবে

    ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং

    ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বেশিরভাগ সময় ফার্স্ট প্রায়োরিটি পায়। এর কারন এর হিউজ চাকরির ক্ষেত্র। এমন কোন ফ্যাক্টরি নেই যেখানে বিদ্যুৎ লাগে না। এছাড়াও পাওয়ার সেক্টর তো আছেই। হাই স্যালারি, সুযোগ সুবিধা কি নেই এই সাব্জেক্টে!

    মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং

    সব ফ্যাক্টরিতে জব পাবেন। বিভিন্ন নামিদামী গাড়ির কোম্পানী গুলোতে জব পাবেন। আন্তর্জাতিকভাবে সুপরিচিত মোটর কোম্পানি গুলো বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছে, ফলে তাদের প্রচুর ম্যাকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার লাগবে।

    সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং আর আর্কিটেকচার

    সিভিল আর আর্কিটেকচারের ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট একটু স্লো। বিশেষ করে গত করোনার মধ্যে প্রচুর সিভিল/আর্কিটেক্টের চাকরি চলে যেতে দেখেছি। কিন্তু এখানে একটা সুবিধা হল আপনি আপনার নিজের প্রতিষ্ঠান খুলতে পারবেন। আর একবার পরিচিত হয়ে গেলে কাজ করার সময় পাবেন না।

    টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং

    গার্মেন্টস সেক্টরে প্রচুর চাকরি আছে। তবে জব চেঞ্জ হয় খুব বেশি। এরা কয়েক বছর চাকরি করে তারপরে নিজেই একটা গার্মেন্টস খুলে বসে।

    গার্মেন্টস সেক্টর নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলে, নাক সিটকায়। কিন্তু আমাদের দেশের অর্থনীতি এই সেক্টরের উপরেই দাঁড়িয়ে আছে। দিন দিন নতুন নতুন ফ্যাকটরি হচ্ছে। সেখানে লোকের চাহিদা প্রচুর। স্যালারিও বেশ ভালো।

    কম্পিউটার সাইন্স বা আইসিটি

    এখন চতুর্থ শিল্প বিপ্লব চলছে অর্থাৎ ইন্টারনেট বিপ্লব। কাজেই কম্পিউটার সাইন্স বা আইসিটির ভালো চাহিদা আছে। তবে কম্পিউটার নিয়ে পড়ার আগে খেয়াল রাখবেন ঐ সাব্জেক্ট আসলেই আপনার ভালো লাগে কি না। প্রচুর কাজ আছে। যদি চাকরি না করতে চান তাহলে ফ্রিল্যান্সিং করার সুযোগ আছে। তবে আমাদের দেশে এখনো এই আইটি সেক্টর সেভাবে গড়ে উঠেনি। ফলে জব ডেভলপমেন্ট খুবই স্লো।

    মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং

    মোটা বেতনের চাকরি রে ভাই এই মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং। জাহাজে জাহাজে কাটে সারা বছর। সমস্যা একটাই ছয় মাস থাকবেন জাহাজে বাকি ছয় মাস দেশে। ফ্যামিলি ছেড়ে এত দিন বাইরে থাকা অনেকি মেনে নিতে পারেনা।

    দেশে বর্তমানে বেশ কিছু মেরিন একাডেমি গড়ে উঠেছে। ভুলেও বেসরকারি মেরিন একাডেমিতে পড়বেন না। তারা অনেক চটকদার কথা বার্তা বলে কিন্তু কোর্স শেষে কোন জাহাজে কাজ পাবেন না। মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ছাড়া পড়লে কোন জাহাজই চাকরি দেয় না। এমনিতে আমাদের দেশের পাসপোর্টের দূর্নাম আছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে। কাজেই চটকদার বিজ্ঞাপনে বিভ্রান্ত হবেন না। মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে হলে অবশ্যই সরকারি যেটা আছে (বঙ্গবন্ধু মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়) পড়বেন।

    এমবিবিএস বা ডাক্তারি

    ডাক্তারি পড়ার ক্ষেত্রে বলব, সরকারি কলেজ গুলো তে চান্স না পেলে বেসরকারি কলেজে যাওয়ার দরকার নাই। প্রচুর টাকা ব্যয় হবে। শুধুমাত্র এমবিবিএস পাশ করলেই হয় না। পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিগ্রি নিতে না পারলে তেমন কোন লাভ নাই। ডাক্তারের পড়া কখনো শেষ হয় না। আরেকটা আজব জিনিস হল তাদের ব্যক্তিগত জীবন বলে কিছু নেই। দিন রাত চব্বিশ ঘণ্টা ব্যস্ত। এত টাকা আয় করে কিন্তু আরাম করে এক কাপ চা খাওয়ার সময় নেই।

    অকুপেশনাল থেরাপি/ফিজিও থেরাপি

    বর্তমানে ফিজিও থেরাপির চাহিদা বেড়েছে প্রচুর। ঢাকার সাভারের সি আর পি (সেন্টার ফর রিহ্যাবিলিট্যাশন অব প্যারালাইজড) তে এ বিষয়ে পড়ানো হয়। এই পেশার ভবিষ্যত খুবই ভালো। তাই যারা মেডিকেলে পড়ার প্ল্যান করছেন তারা ডেন্টালের পাশাপাশি সি আর পি তে আবেদন করবেন অবশ্যই। সি আর পির শাখা মিরপুরেও আছে। তবে সাভারেরটা প্রধান হাসপাতা।

    ফ্যাশন ডিজাইন

    চাকরির স্কোপ কম। আমার পরামর্শ হলে টাকা খরচ করে এই সাব্জেক্টে পড়ার কোন মানে নাই।

    হোটেল ম্যানেজমেন্ট, হসপিটালিটি ও ট্যুরিজম

    চাকরি আছে তবে সে পরিমাণে নেই। স্যালারিও আহামরি কিছু না। আমাদের পর্যটন খাত এখনো সেভাবে ডেভেলপড হয়নি।

    যে সাব্জেক্টেই পড়েন না কেন সব সময় ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার চেষ্টা করবেন। আরেকটা বিষয়, অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে যে সাব্জেক্টেই চান্স পাননা কেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেলে অবশ্যই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বেন। সেটা যত সাধারণ বিষয়ই হোক না কেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আপনাকে চাকরির বাজারে বহুগুণ এগিয়ে রাখবে।

    বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ভালো টিচার আগের মত নেই। ভালো একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়লে একটা ভালো পরিবেশ পাওয়া যায়। এই পরিবেশ আপনাকে জীবনের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষাটা দেবে। আপনাকে কর্মজীবনের জন্য প্রস্তুত করে দেবে। আপনার এই প্রস্তুতিই ভালো একটি চাকরির জন্য সব চেয়ে বেশি প্রয়োজন। ভালো সাবজেক্ট, ভালো রেজাল্ট তখন গৌণ হয়ে যায়। তাছাড়া, যে বিষয়েই পড়েন না কেন কিছু সাধারন বিষয়ে আপনাকে দক্ষ হতেই হবে। মৌখিক পরীক্ষায় শুধুমাত্র বিষয়ভিত্তিক প্রশ্ন করা হয় না।


    টাগঃ কোন বিষয়ে পড়লে কি হওয়া যায়,আর্টস নিয়ে পড়লে কি কি হওয়া যায়,কোন সাবজেক্ট ভালো,কোন লাইনে পড়া ভালো, হিসাববিজ্ঞান পড়ে কি হওয়া যায়, রাষ্ট্রবিজ্ঞান নিয়ে পড়লে কি হওয়া যায়



    < /p>

                                   
    Previous Post Next Post
    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন  

     

    আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন