মাসিকের ব্যথার ঔষধের নাম (মাসিকের ব্যাথা কমানোর উপায় ঔষধ) | মেয়েদের তলপেটে ব্যথা কমানোর উপায় | মাসিকের ব্যাথা কমানোর হোমিও ঔষধ

মাসিকের ব্যথার ঔষধের নাম (মাসিকের ব্যাথা কমানোর উপায় ঔষধ) | মেয়েদের তলপেটে ব্যথা কমানোর উপায় | মাসিকের ব্যাথা কমানোর হোমিও ঔষধ

       
       

    মাসিকের ব্যথার ঔষধের নাম (মাসিকের ব্যাথা কমানোর উপায় ঔষধ) 

    আসছালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক/পাঠিকা সবাই কেমন আছেন। আসা করি সবাই আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। প্রিয় পাঠক /পাঠিকা আজকে আমরা তোমাদের মাসিকের ব্যাথা কমানোর উপায় ঔষধ -মেয়েদের তলপেটে ব্যথা কমানোর উপায় -মাসিকের ব্যাথা কমানোর হোমিও ঔষধ শেয়ার করবো। আসা করি তোমাদের উপকারে আসবে।

    মাসিকের ব্যথা মাসিক-সংক্রান্ত ব্যথা অথবা ডিসমেনোরিয়া হিসাবেও পরিচিত। প্রতিটি মহিলার দ্বারা তাঁর মাসিক-সংক্রান্ত বয়সের মধ্যে অন্ততঃ একবার এটা অনুভূত হয়ে থাকে। একজন মহিলা বিভিন্ন মাসিক চক্র বিভিন্নভাবেও অনুভব করতে পারেন। কারোর পক্ষে, এটা মৃদু এবং কম অস্বস্তিকর, কিন্তু অন্যান্যদের পক্ষে, এটা বেশ বেদনাদায়ক এবং কষ্টকর হয়। 

    আপনার শারীরিক, মানসিক এবং পুষ্টিগত অবস্থার উপর ভিত্তি করে, আপনার জীবনের পরবর্তী পর্যায়গুলিতেও আপনি বিভিন্ন ধরণের তীব্রতাসহ মাসিকের ব্যথা অনুভব করতে পারেন। 

    এটা অনেক সময় বাড়িতে নিরাময় করা যায়। অনেক সময় আবার ডাক্তারে পরামর্শ নিয়ে ঐষদ খেতে হয়।

    মাসিকের ব্যথার বুঝার উপায়

    মাসিকের ব্যথার সবচেয়ে পরিচিত উপসর্গ হচ্ছে তলপেটে একটা ব্যথা। যাই হোক, আপনি হয়তো প্রাথমিক মাসিকের ব্যথার কিছু অন্য উপসর্গও অনুভব করতে পারেন যেমনঃ

    উরুগুলোতে ব্যথা যা আপনার পা, পিঠের নীচে, বুক, ইত্যাদি পর্যন্তও ছড়াতে পারে।

    • বমি বমিভাব
    • বমির অভিজ্ঞতাও হতে পারে। সাধারণতঃ, বমি করার পর কিছুটা ব্যথা উপশমের অনুভূতি হতে পারে।
    • অবসাদ
    • বিরক্তভাব
    • মাথা ঘোরা

    মাসিকের ব্যাথা কমানোর উপায় ঔষধ 

    যখন আপনার ব্যথা অসহ্য হয়, আপনি নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটোরি ড্রাগগুলো নিতে পারেন যা প্রেসক্রিপশন ছাড়া (ওটিসি) পাওয়া যায় যেমন ডাইক্লোফেন্যাক, আইবিউপ্রোফেন, অ্যাসিটামিনোফেন, ইত্যাদি। এই ঔষধগুলি শরীরে প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিনগুলির মাত্রা কমানোয় সাহায্য করে এবং সেজন্য মাসিকের ব্যথা উপশম করে।    

    যদিও এই ঔষধগুলির জন্য কোনও প্রেসক্রিপশনের প্রয়োজন হয়না, যদি আপনার পাকস্থলীর ক্ষত, কিডনির অসুখ, লিভারের অসুখ, হার্টের অসুখ, অ্যাজমা, ইত্যাদি থাকে আপনার এইসমস্ত ঔষধ নেওয়া উচিত নয়। এরকম অবস্থায়, আপনার মাসিকের ব্যথা উপশম করার জন্য একটা বিকল্প ঔষধের ব্যাপারে আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করার জন্য আমরা আপনাকে পরামর্শ দিচ্ছি।

    মেয়েদের তলপেটে ব্যথা কমানোর উপায় 

    প্রাথমিক মাসিকের ব্যথা বাড়িতে সহজেই নিরাময় করা যেতে পারে। আমাদের হিট লিস্টে নিম্নরূপ কয়েকটি বিষয় আছে যা আপনি ভেবে দেখতে পারেনঃ  


    ক্যামোমাইল টি

    ক্যামোমাইল টি-র একটা রোগনিরাময়ের প্রভাব সমীক্ষা করার জন্য একটা সুসম্বদ্ধ পর্যালোচনা নির্দেশ করে যে মাসিক-সংক্রান্ত চক্রের সাথে জড়িত পেশীর খিঁচুনি এবং অন্যান্য উপসর্গগুলি কমানোয় ক্যামোমাইল কার্যকর।  

    আপনার কি কি দরকার?  
    1-2 চা-চামচ ক্যামোমাইল, এক গ্লাস জল, আধ চা-চামচ মধু।

    কিভাবে এটা ব্যবহার করতে হয়?
    ক্যামোমাইল টি বানানোর জন্য, এক গ্লাস জলে ক্যামোমাইল মেশান এবং 5-7 মিনিট ধরে ভেজান। চা ছাঁকুন এবং যখন আপনি ঋতুমতী হন দিনে এটা 2-3 বার পান করুন।

    মাসিকের ব্যথা কমাতে খাদ্য -

    খাদ্য, মাসিকের ব্যথা এবং প্রাকমাসিকের উপসর্গগুলির মধ্যে সম্বন্ধের উপর ভিত্তি করে একটা সমীক্ষা নির্দেশ করে যে একটা কম-চর্বিযুক্ত এবং বেশি ফাইবারযুক্ত নিরামিষ খাদ্য মাসিকের ব্যথা এবং এর তীব্রতা কমাতে সাহায্য করে।
    আপনার মাসিকের কয়েকদিন আগে, চর্বি-সমৃদ্ধ খাদ্য, মুখরোচক খাবার, তৈলাক্ত খাবার, ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। প্রচুর জল এবং আঁশ থাকা উপাদানযুক্ত ফল এবং শাকসবজি সমৃদ্ধ একটা স্বাস্থ্যকর খাদ্য খান। এটা আপনার মাসিকের ব্যথা কমাতে সাহায্য করবে এবং সেই সাথে আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্য উন্নত করতে সাহায্য করবে।

    মাসিকের ব্যথায় ঘুম কার্যকর


    যেকোন ধরণের ব্যথা সে যাই হোক না কেন সেসময় একটা গভীর নিদ্রা হওয়া আমাদের প্রায় সবসময় সাহায্য করে। প্রাকমাসিকের যন্ত্রণার উপসর্গগুলি, মাসিকের মনোভাব এবং ঘুমের প্রকৃতির মধ্যে সম্বন্ধের উপর একটা সমীক্ষা 2015 সালে চালানো হয়েছিল। এই সমীক্ষা নির্দেশ করে যে ঘুমের ধরণে গোলমাল মাসিকের সময়ে উপসর্গগুলির তীব্রতা এবং স্থায়িত্বের অনুভবের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত।    

    সেজন্য, আপনার মাসিকের ব্যথার তীব্রতা কমানোর জন্য, এটা প্রয়োজন যে আপনি একটা 7-8 ঘন্টার ভাল নিদ্রা নিয়মিতভাবে নিন এবং আরাম করুন।

    মাসিকের ব্যথার জন্য ভিটামিন B1 এবং ফিশ অয়েল

    প্রাথমিক এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের মাসিকের ব্যথা নিরাময় করার জন্য ভেষজ এবং খাদ্যতালিকাগত সম্পূরকগুলি ভিত্তিক একটা সমীক্ষা নির্দেশ করে যে ভিটামিন B1 বা থায়ামিন যখন রোজ 100 mg করে ফিশ অয়েল ক্যাপসুলের সাথে নেওয়া হয়, উল্লেখযোগ্যভাবে মাসিকের ব্যথা কমায়।   

    আপনি নিজে নিজে ভিটামিন B1 নেওয়ার আগে আপনার স্ত্রীরোগবিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলুন। আপনার ডাক্তার সঠিক মাত্রা এবং ব্যাপ্তিকাল যার জন্য আপনার এগুলো নিতে হবে সেবিষয়ে আপনাকে পরামর্শ দেবেন। আপনি ভিটামিন B1 সমৃদ্ধ খাবার যেমন মটরশুঁটি, চানা জাতীয় খাবার, বাদাম, ওটস, দুধ, ভাত, ইত্যাদিও নিতে পারেন।

    মাসিকের ব্যাথা কমানোর হোমিও ঔষধ


    Tag:মাসিকের ব্যথার ঔষধের নাম (মাসিকের ব্যাথা কমানোর উপায় ঔষধ),  মেয়েদের তলপেটে ব্যথা কমানোর উপায়,  মাসিকের ব্যাথা কমানোর হোমিও ঔষধ

                                   
    Previous Post Next Post
    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন  

     

    আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন