বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রচনা - বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য | Bangladesh Natural Beauty Rochona

বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রচনা - বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, Bangladesh Natural Beauty Rochona, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের গুরুত্ব, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অনুচ্ছেদ রচনা, রচনা - বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য


    বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রচনা

    ভূমিকা : বাংলাদেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি । বিশ্বপ্রকৃতির অনন্য বৈচিত্র্যের মাঝে যারা নিজেকে খুঁজে পেতে চায় , তাদের জন্য বাংলাদেশ যেন সৌন্দর্যের এক তীর্থস্থান । এ দেশের নির্মল আকাশ , নদী কান্তার , পুষ্প - পল্লব , ছায়াঢাকা গ্রাম , মায়াভরা পাহাড় , সুবিশাল সমুদ্র সব মিলিয়ে এক অপূর্ব আবেদন সৃষ্টি করেছে । কবি কণ্ঠে তাই বাংলাদেশের প্রশস্তি , নম নম নম বাংলাদেশ মম , চির মনােরম , চির মধুর ' । অপরূপ বাংলাদেশ : বাংলাদেশের সর্বত্র ছড়িয়ে - ছিটিয়ে রয়েছে প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য । বাংলাদেশের যেদিকেই দৃষ্টিপাত করি না কেন , প্রতিটি স্থানেই চোখজুড়ানাে সৌন্দর্য আবিষ্কার সম্ভব । শস্য - শ্যামল গ্রামগুলাে অপরূপ মাতৃময়ী ভঙ্গিতে সদা হাস্যোজ্জ্বল । বাংলাদেশের নদনদী ভাবুকের হৃদয়ে অফুরন্ত ভাব জাগিয়ে বয়ে চলেছে । সবুজ পাহাড় আর টিলার সৌন্দর্য রূপপিয়াসী মানুষকে হাতছানি দিয়ে এসেছে চিরকাল । সমুদ্র দিনরাত এদেশের পা ধুইয়ে দিচ্ছে । আকাশ নীলের ঘনঘটায় এদেশের দিগন্ত প্লাবিত । মাঠের শ্যামলিমা এ.দেশকে সবুজ শাড়ি হয়ে জড়িয়ে রেখেছে । সবুজ বনরাজি বাংলাদেশের শিরে পরিয়েছে রানির মুকুট । নানা ঋতুতে , বাংলাদেশ সেজে ওঠে ভিন্ন ভিন্ন বৈচিত্র্য নিয়ে । দিন ও রাতের একেক সময়ে একেক সৌন্দর্য ধরা পড়ে সৌন্দর্যপ্রেমীদের চোখে । পৃথিবীর তাবৎ সৌন্দর্য যেন একাই ধারণ করে আছে এ দেশ । বাংলার রূপমুগ্ধ । কবির উচ্চারণ : বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি , তাই আমি পৃথিবীর রূপ খুঁজিতে যাই না আর । 

    গ্রামবাংলার রূপশােভা : বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রাম যেন প্রকৃতির এক অপূর্ব রঙ্গশালা । যেদিকে চোখ যায়— অবারিত সবুজ মাঠ , ফুলে - ফলে - পাতায় সাজানাে বৃক্ষরাজি , তৃণ - গুল্মশােভিত বন - বনানি , শ্যামল শস্যক্ষেত্রের এই অনুপম রূপসুধা পান করে সবার হৃদয়ে এক অভিনব আনন্দের শিহরণ জাগে । কোথাও প্রকৃতির সবুজের ঘােমটা ভেদ করে পাকা শস্যের সােনালি মুখখানা নজরে আসে । আবার কোথাও বিশালদেহ বটবৃক্ষ প্রান্তরের এক স্থান ঊর্ধ্ববাহু হয়ে মৌন তাপসের মতাে দাঁড়িয়ে সুশীতল ছায়া দিয়ে পথিকের ক্লান্তি দূর করছে । কোথাও তালগাছ এক পায়ে দাঁড়িয়ে আকাশ থেকে নীলিমা ছিনিয়ে আনতে চাচ্ছে । আবার কোথাও কাকচক্ষু দিঘির জলে লাল শাপলা ও পদ্ম ফুটে অপরূপ সৌন্দর্য বিস্তার করছে । বাংলাদেশের গ্রামের এই সৌন্দর্য সবার মন ভরিয়ে দেয় । গ্রামের মাটির পরশ আর শ্যামলিমায় অভিভূত কবির অনুভূতি : 
    আমার দেশের মাটির গন্ধে ভরে আছে সারা মন । শ্যামল কোমল পরশ ছাড়া যে নেই কিছু প্রয়ােজন । 

    বয়ে চলা নদনদী : বাংলাদেশের বুক জুড়ে বয়ে চলেছে ছােট বড় অসংখ্য নদনদী । এ নদনদীগুলাে বাংলার অতুলনীয় সৌন্দর্যের অন্যতম আধার । প্রতিটি নদীই স্বতন্ত্র সৌন্দর্যে পরিপূর্ণ । কোনটি শান্ত , কোনটি বা । খরস্রোতা , কোনােটির জল স্ফটিক - স্বচ্ছ , কোনােটির কাজল কালাে , কোনােটি ঘােলা , কোনােটি আবার নীলচে ।নদীর অবিরাম স্রোতধারা , নদীর বুকে বয়ে চলা জেলেদের ডিঙ্গি নৌকা , ভেসে যাওয়া কচুরিপানা , নদীর পানিতে সূর্যরশ্মির আলােকচ্ছটা , নদী তীরের কাশবন এসবের মিলিত সৌন্দর্য বাংলাদেশের নদীগুলােকে করেছে অপরূপ । নদীর সাথে বাংলাদেশের প্রকৃতি ও পরিবেশ কতখানি গভীরভাবে জড়িয়ে আছে তা গীতিকারের কলমে এভাবেই প্রকাশ পেয়েছে : এই পদ্ম , এই মেঘনা , এই যমুনা সুরমা নদীতটে আমার রাখাল মন গান গেয়ে যায় এ আমার দেশ , এ আমার প্রেম আনন্দ - বেদনা মিলন - বিরহ - সংকটে । 

    ঐশ্বর্যময় ষড়ঋতু : বাংলাদেশের রূপবৈচিত্র্যে অসাধারণ বিশিষ্টতা যােগ করেছে ষড়ঋতু । সারাবছর ছয়টি ঋতুর ধারাবাহিক আসা - যাওয়ায় বাংলার উঠোনে রূপের মেলা বসে । গ্রীষ্মের রুক্ষ , ধূসর প্রকৃতি বর্ষার আগমনে শ্যামলিমা ও স্নিগ্ধতায় ভরে ওঠে । বর্ষার পর নীল আকাশে সাদা মেঘে ভাসিয়ে আর কাশফুলের পরশ নিয়ে আসে শরৎ । শীতের আগমনী আর নতুন ফসলের বার্তা বয়ে আনে হেমন্ত । শীতে প্রকৃতি হয়ে পড়ে জীর্ণ আর শীতের রিক্ততার পর পূর্ণতা নিয়ে আসে ঋতুরাজ বসন্ত । বসন্তে ফুল - পত্রের প্রাণপ্রাচুর্যে মুখরিত হয় চারদিক । বাংলাদেশের মতাে এত বেশি ঋতুভিত্তিক রূপবৈচিত্র্য পৃথিবীর আর কোনাে দেশে দেখা যায় না । ঋতুর বৈচিত্র্যে বাংলাদেশ সারাবছরই হয়ে থাকে রূপসী বাংলা । 

    বনভূমির সৌন্দর্য : অপূর্ব সৌন্দর্যে সজ্জিত এদেশের রয়েছে গাঙ্গেয় অববাহিকায় জেগে ওঠা উর্বর পলিমাটির দ্বীপ । এ সমৃদ্ধ মাটিতে জন্ম নিয়ে যুগে যুগে পরিণতি লাভ করেছে প্রচুর বনাঞ্চল । বিশ্বজুড়ে পরিচিতি রয়েছে বাংলাদেশে অবস্থিত ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনের নাম , যেখানকার বিশাল বনানীতে সৃষ্টি হয়েছে স্বতন্ত্র এক জীবনধারা । সুন্দরবন ছাড়াও স্বতন্ত্র রূপমাধুর্যে সমুজ্জ্বল ভাওয়াল ও মধুপুরের বনাঞ্চল , পার্বত্য চট্টগ্রাম , সিলেট , বান্দরবান ইত্যাদি অঞ্চলের বনাঞ্চল । প্রকৃতিপ্রেমী মানুষের চিরকালীন আকর্ষণ এই সবুজ বন - বনানি । 

    অপরূপ সমুদ্র - গাঁথা : বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আরেক আকর্ষণের নাম সমুদ্র । বাংলাদেশের রয়েছে নয়নাভিরাম দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত যা এদেশের দক্ষিণ সীমাজুড়ে বিস্তৃত । কক্সবাজার , কুয়াকাটা , পতেঙ্গা ইত্যাদি হলাে দেশের উল্লেখযােগ্য সমুদ্র সৈকত । অফুরন্ত জলরাশি , বালুকাময় দিকচিহ্নহীন সৈকত , সৈকতজুড়ে প্রবালের প্রাচীর , পার ধরে দাঁড়িয়ে থাকা নারিকেল , কেয়া গাছের সারি , সুনসান নীরব রাতে আছড়ে পড়া । ঢেউয়ের গর্জন এসব প্রত্যক্ষ করার জন্য সৌন্দর্য পিপাসীরা বারবার ফিরে আসে সমুদ্রের টানে । 

    পাহাড় - টিলার সৌন্দর্য : বাংলাদেশের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের আরেক বৈচিত্র্য এ দেশের পাহাড় ও টিলার শ্রেণি । ছােট বড় নানা আকারের পাহাড় ও টিলা রয়েছে সিলেট , নেত্রকোনাসহ পার্বত্য চট্টগ্রামের পুরাে অংশজুড়ে । পাহাড়ের মাঝ দিয়ে চলে যাওয়া আঁকাবাঁকা রাস্তা , পাহাড়ের গায়ে অপরূপ ঝর্ণা আর জলপ্রপাত , সবুজ গাছপালায় পরিপূর্ণ গহীন পাহাড়ি বনাঞ্চল , পাহাড়ি নদীর ক্ষুরধার স্রোত সবমিলিয়ে বাংলার পাহাড়ি সৌন্দর্য অসাধারণ ভালােলাগার শিহরণ জাগায় । 

    বিভিন্ন প্রহরের সৌন্দর্য : দিন - রাতের বিভিন্ন প্রহরে বাংলাদেশের রূপময়তার বৈচিত্র্য সংবেদনশীল মানবমনকে ছুঁয়ে যায় । ভােরবেলার শান্ত প্রকৃতির স্নিগ্ধ রূপ মনকে প্রশান্ত করে তােলে । আঁধারঘেরা সন্ধ্যার মৌনতায় মন হয়ে ওঠে উদাস । ভরা পূর্ণিমার রাতে যখন মাঠঘাট দিগন্তপ্লাবী জোছনায় থই থই করে তখন তার রূপের আকর্ষণে ঘরে বসে থাকা দায় । আবার প্রখর রৌদ্র - নীল আকাশ কিংবা ঝুম বৃষ্টির আগমুহূর্তের মেঘে ঢাকা কালাে আকাশও অসাধারণ সৌন্দর্যের সৃষ্টি করে ।

    হতাশার কথা : বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সারাবিশ্বে প্রশংসিত হলেও সময়ের সাথে সাথে এ সৌন্দর্যে ভাটা পড়ছে । অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে নানা স্থানের প্রকৃতিকে ধ্বংস করে গড়ে উঠছে যান্ত্রিক সভ্যতা । জনসংখ্যার ক্রমবর্ধমান চাপ গিয়ে পড়ছে প্রকৃতির ওপর । জীবনধারণের তাগিদে মানুষ ধ্বংস করছে প্রকৃতি । চোখজুড়ানাে সবুজের পরিমাণ দিন দিন কমে যাচ্ছে । পাহাড় উজাড় করে স্থাপিত হচ্ছে আবাসস্থল । নদী , সমুদ্রসহ অন্যান্য জলাশয়গুলাে দূষিত হচ্ছে মারাত্মকভাবে । সব মিলিয়ে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এখন হুমকির সম্মুখীন । বাংলার এই সৌন্দর্য যেন অটুট থাকে তার জন্য প্রকৃতিকে ভালােবাসতে হবে এবং প্রকৃতির প্রতি আপন আপন দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হতে হবে । 

    উপসংহার : পৃথিবীতে সৌন্দর্যের যত ধারণা আছে বাংলাদেশের প্রকৃতিতে তার সবই যেন পূর্ণরূপে বিকশিত । আমাদের দেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সৌন্দর্যপিয়াসী মানুষকে করেছে ঘরছাড়া । বাংলাদেশকে প্রকৃতির সুরম্য লীলানিকেতন বললে ভুল হবে না । প্রাকৃতিক সুষমাই বাংলাদেশকে সকল দেশের রানিতে পরিণত করেছে । কবির ভাষায় : ‘ 

      এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি 
       সকল দেশের রাণী সে যে আমার জন্মভূমি ।

    বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের গুরুত্ব 


    Bangladesh Natural Beauty 


    Tag: বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রচনা - বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, Bangladesh Natural Beauty Rochona, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের গুরুত্ব, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অনুচ্ছেদ রচনা, রচনা - বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য
    Previous Post Next Post


    TOP POST

     

     

    🔽 এস এস সি/দাখিল ১ম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট ২০২২ সমাধান দেখতে ক্লিক করুন

    🔽 এইচ এস সি/আলিম ১ম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২ দেখতে ক্লিক করুন

    🔽 সকল সপ্তাহের এসাইনমেন্ট সমাধান (ষষ্ঠ-নবম শ্রেণীর) দেখতে ক্লিক করুন 

    ☀️আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন 

    ��এসএসসি সকল বই ও নোট ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন