নামাজ পড়ার নিয়ম ও দোয়া | পূর্ণাঙ্গ নামাজের নিয়ম | নামাজ পড়ার পদ্ধতি


আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠকবৃন্দ বন্ধুরা। আপনাদের সবাইকে Educationblog24.Com এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করি আল্লাহর অশেষ রহমতে আপনারা সবাই অনেক ভালো আছেন। 

আমাদের আজকের পোস্টের মাধ্যমে আপনাদের মাঝে শেয়ার করবো নামাজ পড়ার সঠিক নিয়ম এবং পদ্ধতি। নামাজ পড়ার কিছু নিয়ম আছে যা আমাদের অনেকেরই অজানা। আসুন আমরা আজকে এই পোস্টের মাধ্যমে জেনে নি পূর্ণাঙ্গ নামাজের নিয়ম ও নামাজের নিয়ত এবং দোয়া। 

আশা করি আপনাদের এই অজানা কিছু তথ্য জানাতে পেরে অনেক উপকার করতে পারলাম। 


       
       

    নামাজ পড়ার নিয়ম ও দোয়া  

    ফজর নামাজের নিয়ম ও নিয়ত

    ফজর নামাজ চার রাকাত

    ১. দুই-রাক'আত সুন্নত।
    ২. দুই-রাক'আত ফরজ।

    ফরজরের দুই-রাক'আত সুন্নত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন
    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتَىْ صَلَوةِ الْفَجْرِ سُنَّةُ رَسُوْلُ للَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ-

    বাংলা-উচ্চারন
    নাওয়াইতু আন উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকা’আতাই সালাতিল ফাজরে সুন্নাতু রাছুলিল্লাহি তা’আলা মুতাওয়াজ্জিহান ইলাজিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থ
    ফজরের দুই-রাক'আত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    ফরজরের দুই-রাক'আত ফরজ নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন
    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتَىْ صَلَوةِ الْفَجْرِ فَرْضُ للَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ-

    বাংলা-উচ্চারন
    নাওয়াইতু আন উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকা’আতাই সালাতিল ফাজরে ফারযুল্লাহি তা’আলা মুতাওয়াজ্জিহান ইলাজিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    বিঃদ্রঃ-ঈমামের পিছনে পড়লে ফারদীল্লা-হি তাআ'লা বলার পরে ইকতাদাইতু বিহা-যাল ইমাম বলবে।

    বাংলা অর্থ
    ফজরের দুই-রাক'আত ফরয নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    ফজর নামাজের তাসবিহ

    উচ্চারণঃ হুয়াল হাইয়্যুল কাইয়্যুম।
    অর্থঃ তিনি চির জীবত ও চিরস্থায়ী।

    বিঃদ্রঃ- ফজর নামাজের শেষে ১০০ বার পাঠ করার তাসাবীহ্‌।

    ফজরে নামাজের সময়-সূচী
    ফজরঃ-পাখি ডাকা ভোরে কিছুটা আঁধার থাকতেই অর্থাৎ সকালের আভা ছড়িয়ে পড়ার আগেই এই নামাজ আদায় করে নেয়া ভাল। তবে এই ক্ষেত্রে বিশেষে প্রয়োজনে সূর্যের উদীয়মান প্রথম অংশ পূর্ব দিগন্ত রেখা অতিক্রম করার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত নামাজ আদায় করে নেয়া যেতে পারে। সূর্যোদয়ের সময় নামাজ পড়া নিষেধ।

     

    যোহর নামাজ  নিয়ত

    যোহর নামাজ ১২ রাকাতঃ

    ১.চার-রাকাত সুন্নত।

    ২.চার-রাকাত ফরজ।

    ৩.দুই-রাকাত সুন্নত।

    ৪.দুই-রাকাত নফল।

     

    যোহর চার-রাকাত সুন্নত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন:
    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى اَرْبَعَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْظُهْرِسُنَّةُ رَسُوْلِ للَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

     

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল জোহরে সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আকবর।

    বাংলা অর্থ:

    যোহরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম, আল্লাহু আকবার।

     

    যোহর চার-রাকাত ফরজ নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

     نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى اَرْبَعَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْظُهْرِ فَرْضُ اللَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসাল্লিয়া লিল্লাহি তা’আলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিজ যোহরে ফারদুল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আকবর।

    বিঃদ্রঃ-ঈমামের পিছনে পড়লে ফারদীল্লা-হি তাআ'লা বলার পরে ইকতাদাইতু বিহা-যাল ইমাম বলবে।

    বাংলা অর্থ

    যোহরের চার রাকাত ফরজ নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম, আল্লাহু আকবার।

     

    যোহর দুই-রাকাত সুন্নাত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتِ صَلَوةِ الْظُهْرِسُنَّةُ رَسُوْلِ للَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকাআতি ছালাতিজ যোহরে সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আকবর।

    বাংলা অর্থ

    যোহরের দুই-রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    যোহর দুই-রাকাত নফল নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتِ صَلَوةِالْنَفْلِ مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকাআতি ছালাতিল নফলে মোহাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থ

    যোহরে দুই-রাকাত নফল নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলা মুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    যোহর নামাজের তাসবিহ উচ্চারণঃ

    হুয়াল আলহিয়্যাল আজীম।

    অর্থঃ

    তিনি শ্রষ্ট্রেতর অতি মহান।

    বিঃদ্রঃ-যোহর নামাজের শেষে ১০০ বার পাঠ করার তাসাবীহ্‌। যোহর নামাজের সময়-সূচী যোহরঃ-মধ্যাহ্নে সূর্য তার সর্বোচ্চ স্থান থেকে কিছুটা হেলে পড়ার পর পরই নামাজ আদায় করে নেয়া ভাল। তবে সূর্যকিরণ যখন বেশ উত্তপ্ত থাকে, বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে একটু দেরিতে অর্থাৎ সূর্যের তেজ কিছুটা কমে এলে নামাজ আদায় করে নেয়ার অবকাশ রয়েছে। ক্ষেত্র বিশেষে আছরের সময় হওয়া পর্যন্ত নামাজ আদায় করে নেয়া যেতে পারে। যদি কোন কারণে ফরজের পূর্বে চার রাকাত সুন্নত আদায় করতে না পারে,তাহলে ফরজের পরে আদায় করে নিবে।

     

    আসর নামাজ  নিয়ত

    আসর নামাজ  রাকাত

    ১.চার-রাকাত সুন্নত।

    ২.চার-রাকাত ফরজ।

    আসরের চার-রাকাত সুন্নত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى اَرْبَعَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْعَصْرِسُنَّةُ رَسُوْلِ للَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল আসরি সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আকবর।

    বাংলা অর্থ

    আছরের চার রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    আসরের চার-রাকাত ফরজ নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى اَرْبَعَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْعَصْرِ فَرْضُ اللَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল আসরি ফারদুল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আকবর।

    বিঃদ্রঃ-ঈমামের পিছনে পড়লে ফারদীল্লা-হি তাআ'লা বলার পরে ইকতাদাইতু বিহা-যাল ইমাম বলবে।

    বাংলা অর্থ

    আছরের চার রাকাত ফরজ নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    আছর নামাজের তাসবিহ উচ্চারণঃ

    হুয়ার রাহমা-নুর রাহীম।

    অর্থঃ

    তিনি কৃপাময় ও করুনা নিধান।

    বিঃদ্রঃ-আসর নামাজের শেষে ১০০ বার পাঠ করার তাসাবীহ্‌।

    আছর নামাজের সময়-সূচী

    আছরঃ-যোহর নামাজের পর অর্থাৎ মধ্যাহ্ন পেরিয়ে সূর্য যখন পশ্চিম দিগন্ত রেখা থেকে বেশ কিছুটা উপরে অবস্থান করে এবং সূর্যের উজ্জ্বলতা তেজ বিরাজমান থাকে,সেই সময় থেকে সূর্যের সোনালী তামাটে বর্ণ মিটে গিয়ে রক্তিম বর্ণ ধারণ করার পূর্বেই নামাজ আদায় করে নেয়া ভাল। সে সময় সূর্য দিগন্ত রেখা থেকে এতটা উপরে থাকা উচিত যে,জানালা গলে ঘরের মাঝে ছড়িয়ে পড়া সূর্যকিরণ মিটে গিয়ে যেন ছায়া ঘনিয়ে না আসে। তবে ক্ষেত্র বিশেষে প্রয়োজনে সূর্যের অস্তগামী প্রথম অংশ দিগন্তরেখা অতিক্রম করার আগ মূহুর্ত পর্যন্ত নামাজ আদায় করে নেয়া যেতে পারে। সূর্যাস্তের সময় নামাজ পড়া নিষেধ।

     

    মাগরিবের নামাজ  নিয়ত

    মাগরিবের নামাজ  রাকাত
    ১.তিন-রাকাত ফরজ ।
    ২.দুই-রাকাত সুন্নত ।
    ৩.দুই-রাকাত নফল।

    মাগরিবের তিন-রাকাত ফজর নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন
    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى ثَلَثَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْمَغْرِبِ فَرْضُ اللَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ-


    বাংলা-উচ্চারন
    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা সালাছা রাকায়াতি ছালাতিল মাগরিবে ফারদুল্লাহি তায়ালা মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতি শারিফাতি আল্লাহু আকবার।

    বিঃদ্রঃ-ঈমামের পিছনে পড়লে ফারদীল্লা-হি তাআ'লা বলার পরে ইকতাদাইতু বিহা-যাল ইমাম বলবে।

    বাংলা অর্থঃ
    মাগরিবের তিন রাকাত ফরজ নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।


    মাগরিবের দুই-রাকাত সুন্নত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন
    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتِ صَلَوةِ الْمَغْرِبِ سُنَّةُ رَسُوْ ا الِلَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ


    বাংলা-উচ্চারন
    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকায়াতি ছালাতিল মাগরিবে সুন্নাতু রাসুলল্লাহি তা’য়ালা মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতি শারিফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থঃ
    মাগরিবের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    মাগরিবের দুই-রাকাত নফল নামাজের নিয়ত সমূহঃ


    আরবি-উচ্চারন
    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتِ صَلَوةِالْنَفْلِ مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন
    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকাআতি ছালাতিল নফলে মোহাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থঃ
    মাগরিবের দুই-রাকাত নফল নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    মাগরিব নামাজের তাসবিহ
    উচ্চারণঃ হুয়াল গাফুরুর রাহীম।
    অর্থঃ তিনি মার্জনাকারী ও করুণাময়।

    বিঃদ্রঃ-মাগরিব নামাজের শেষে ১০০ বার পাঠ করার তাসাবীহ্‌।

    মাগরিব নামাজের সময়-সূচী

    মাগরিবঃ-সূর্য সম্পূর্ণরূপে অস্ত যাবার পর কিছু সময়ের মধ্যেই নামাজ আদায় করে নেয়া ভাল। তবে সূর্যাস্তের পর হতে যতক্ষণ পর্যন্ত নিক্ষিপ্ত কোন তীরের পতিত হবার স্থান দৃষ্টিগোচর হয় অর্থাৎ গোঁধুলির রেশ বিরাজমান থাকা (পশ্চিম দিগন্তের লাল আভা অদৃশ্য হয়ে রাতের অন্ধকার ঘনিয়ে না আসা)পর্যন্ত নামাজ আদায় করে নেয়া যেতে পারে।

     

    এশার নামাজ  নিয়ত

    এশার নামাজ ১৭ রাকাতঃ

    ১.চার-রাকাত সুন্নত।

    ২.চার-রাকাত ফরজ।

    ৩.দুই-রাকাত সুন্নত।

    ৪.দুই-রাকাত নফল।

    ৫.তিন-রাকাত বেতর।

    ৬.দুই-রাকাত নফল।

     

    এশার চার-রাকাত সুন্নত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَالَى اَرْبَعَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْعِشَاءِسُنَّةُ رَسُوْلِ للَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল এশাই সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আল্লাহু আকবর।

    বাংলা অর্থ

    এশার চার রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    এশার চার-রাকাত ফরজ নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى اَرْبَعَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْعِشَءِ فَرْضُ اللَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল এশাই ফারদুল্লাহি তা’য়াল মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি আল্লাহু আকবর

    বিঃদ্রঃ-ঈমামের পিছনে পড়লে ফারদীল্লা-হি তাআ'লা বলার পরে ইকতাদাইতু বিহা-যাল ইমাম বলবে।

    বাংলা অর্থ

    এশার চার রাকাত ফরজ নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    এশার দুই-রাকাত সুন্নাত নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَايْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّّهِ تَعَالَى رَكْعَتَىْ صَلَوةِ الْعِشَاءِ سُنَّةُ رَسُوْلِ اللَّهِ تَعَالَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِيْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকায়াতি ছালাতিল এশাই সুন্নাতু রাসুলল্লাহি তা’য়ালা মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতি শারিফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থ

    এশার দুই রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থ

    এশার দুই রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    এশার দুই-রাকাত নফল নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتِ صَلَوةِالْنَفْلِ مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকাআতি ছালাতিল নফলে মোহাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থ

    এশার দুই-রাকাত নফল নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলা মুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    এশার তিন-রাকাত বেতর নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى ثَلَثَ رَكْعَتِ صَلَوةِ الْوِتْرِوَاجِبُ اللَّهِ تَعَا لَى مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা সালাছা রাকায়াতি ছালাতিল বিতরে ওয়াজিবুল্লাহি তা’য়ালা মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ্ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    এশার দুই-রাকাত নফল নামাজের নিয়ত সমূহঃ

    আরবি-উচ্চারন

    نَوَيْتُ اَنْ اُصَلِّىَ لِلَّهِ تَعَا لَى رَكْعَتِ صَلَوةِالْنَفْلِ مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِ يْفَةِ اَللَّهُ اَكْبَرُ

    বাংলা-উচ্চারন

    নাওয়াইতুয়ান উসালিয়া-লিল্লাহি তা’আলা রাকাআতি ছালাতিল নফলে মোহাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

    বাংলা অর্থ

    এশার দুই-রাকাত নফল নামাজ আদায় করার উদ্দেশ্যে কিবলা মুখী হয়ে নিয়্যত করলাম,আল্লাহু আকবার।

    এশার নামাজের তাসবিহ উচ্চারণঃ

    হুয়াল্ লাতিফুল খাবীর।

    অর্থঃ

    তিনি পাক ও অতিশয় সর্তকশীল।

    বিঃদ্রঃ-এশার নামাজের শেষে ১০০ বার পাঠ করার তাসাবীহ্‌। এশার নামাজের সময়-সূচী এশারঃ-গোধুলী পেরিয়ে রাতের অন্ধকার ঘনিয়ে আসার পর হতে এই নামাজের ওয়াক্ত শুরু হয় এবং রাতের এক তৃতীয়াংশ সময় থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত যে কোন সময়ে নামাজ আদায় করে নেয়া যেতে পারে।

     বিঃদ্রঃফজর,জহুর,আছর ও মাগরিবের নামাজ বেশি দেরি না করে ওয়াক্ত হয়ে যাবার কিছু সময়ের মধ্যেই আদায় করে নেয়া উত্তম। কোন কারনে সময় সম্পর্কে যদি খেয়াল না থাকে বা ঘুমিয়ে থাকলে বা কোন বিশেষ কারনে কোন নির্দিষ্ট নামাজের ওয়াক্তের সময় পেরিয়ে গেলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা আদায় করে নিতে হবে। এক্ষেত্রে অবশ্যই নামাজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে অর্থাৎ যে ওয়াক্তের নামাজ মিস হয়েছে তা আগে আদায় কোরে নিতে হবে। যেমন সূর্যাস্তের আগে আছরের নামাজ আদায় করা সম্ভব না হলে সূর্যাস্তের পর আগে আছরের নামাজ এবং তারপর মাগরিবের নামাজ আদায় করতে হবে। তবে এর জন্য মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিতে হবে। সফরে থাকলে মাগরিব একটু দেরিতে পড়ে তার পরপরই ইশার নামাজ আদায় করে নেয়ার অবকাশ রয়েছে। আবার সূর্য ঢলে পড়ার আগে সফরে বের হলে যোহর একটু দেরিতে পড়ে একসাথে আছরের নামাজ আদায় করে নেয়া যায়।


    পূর্ণাঙ্গ নামাজের নিয়ম  

    জুম্মার নামাজের সম্পূর্ণ নিয়ম কানুন 

    জুমা’আর দিন যে ব্যাক্তি গোসল করায় (অর্থাৎ সহবাস করে, ফলে স্ত্রী ফরজ গোসল করে এবং) নিজেও ফরজ গোসল করে, পূর্বাহ্ণে মসজিদে আগমন করে এবং নিজেও প্রথম ভাগে মসজিদে গমন করে, পায়ে হেঁটে মসজিদে যায় (অর্থাৎ কোন কিছুতে আরোহণ করে নয়), ইমামের কাছাকাছি গিয়ে বসে, মনোযোগ দিয়ে খুৎবা শোনে, কোন কিছু নিয়ে খেল তামাশা করে না, সে ব্যাক্তির প্রতিটি পদক্ষেপের জন্য রয়েছে বছরব্যাপী রোজা পালন ও সারা বছর রাত জেগে ইবাদত করার সমতুল্য সওয়াব।

    জুম্মার নামাজের সময়
    জুমার দিন যোহরের নামাযের পরিবর্তে দুই রাকাআত জুমআর নামাজ আদায় করা প্রত্যেক মুসলমানের উপর ফরজ। ইহার ওয়াক্ত যোহরের ওয়াক্তের সময়।জুম্মার দিন দুপুরে গোসল করিয়া পরিষ্কার পোষাক পরিধান করিয়া আযানের সাথে সাথে মসজিদে উপস্থিত হইয়া জুম্মার নামাজ আদায় করতে হয়।

    জুম্মার নামাজের রাকাআতের সংখ্যা
    চার রাকাত কাবলাল জুমআ,তারপর দুই খুতবা পাঠের পর দুই রাকাত ফরজ নামাজ তারপর চার রাকাত বা’দাল জুমআ আদায় করতে হয়। জুম্মার দিন সময় থাকলে তাহিয়্যাতুল অজু, দুখলুল মসজিদ, সুন্নতুল ওয়াক্ত ও নফল নামাজ আদায় করা উত্তম। কিন্তু ঐ নামাজ গুলো জুমাআর নামাজের সাথে সম্পৃক্ত নয়।

    চার রাকাত ক্বাবলাল জুমআর নিয়ত
    উচ্চারণঃ নাওয়াইতু আন উছাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল ক্বাবলাল জুমুআতি সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তাআলা,মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতি শারীফাতি আল্লাহু আকবর।

    বাংলায় নিয়াতঃ- আমি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য ক্বেবলামুখী হইয়া চার রাকআত ক্বাবলাল জুমআ সুন্নাত নামাজ আদায় করিতেছি,আল্লাহু আকবর।

    দুই রাকাত জুমআর ফরজের নিয়ত
    উচ্চারনঃ নাওয়াইতু আন উসাক্বিতা আ’ন যিম্মাতি ফারদুজ্জুহরী বিআদায়ি রাকআতাই ছালাতিল জুমুআতি ফারদুল্লাহি তাআলা ইক্বতাদাইতু বিহাযাল ইমামি মুতাওয়াজজিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ্‌ শারিফাতি আল্লাহু আকবর। 

    বাংলায় নিয়তঃ  আমি আল্লাহ্‌র জন্য ক্বেবলা মুখী হইয়া আমার উপর যোহরের ফরজ নামাজ উত্তীর্ন করিতে জুমআর দুই রাকআত ফরজ নামাজ এই ইমামের পিছনে পড়িতে নিয়ত করিলাম,আল্লাহু আকবর।

    চার রাকাত বা’দাল জুমআর নিয়ত
    উচ্চারনঃ নাওয়াইতু আন উছাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা আরবায়া রাকাআতি ছালাতিল বা’দাল জুমুআতি সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তাআলা,মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতি শারীফাতি আল্লাহু আকবর।

    বাংলায় নিয়তঃ  আমি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য ক্বেবলামুখী হইয়া চার রাকআত বা’দাল জুমআ সুন্নাত নামাজ আদায় করিতেছি,আল্লাহু আকবর।

    নামাজ পড়ার পদ্ধতি


    Tag: নামাজ পড়ার নিয়ম ও দোয়া, পূর্ণাঙ্গ নামাজের নিয়ম,  নামাজ পড়ার পদ্ধতি

                                   
    Previous Post Next Post
    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন  

     

    আপনার নামের অর্থ জানতে ক্লিক করুন