এমএস ওয়ার্ড ব্যবহার করে বাংলা/ইংরেজিতে একটি বায়োডাটা তৈরি করার ধাপ বর্ণনা কর | এইচএসসি বিএম এসাইনমেন্ট ২০২১ উত্তর/সমাধান কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ (৬ষ্ট সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৪ | ২০২১ সালের এইচএসসি (বিএম) ৬ষ্ট সপ্তাহের এসাইনমেন্ট সমাধান /উত্তর কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ (১ম পত্র)


    এইচএসসি বিএম এসাইনমেন্ট ২০২১ উত্তর/সমাধান কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ (৬ষ্ট সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৪  


    এমএস ওয়ার্ড ব্যবহার করে বাংলা/ইংরেজিতে একটি বায়োডাটা তৈরি করার ধাপ বর্ণনা কর


    ১.ওয়ার্ড প্রসেসিং প্রােগ্রামের প্রাথমিক ধারণাঃ 

    ওয়ার্ড শব্দের অর্থ হচ্ছে শব্দ এবং প্রসেসিং শব্দের অর্থ হচ্ছে প্রক্রিয়াকরণ । ওয়ার্ড প্রসেসিং শব্দের অর্থ হচ্ছে শব্দ প্রক্রিয়াকরণ । 

    ওয়ার্ড প্রসেসিং হলাে কোন অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ডকুমেন্ট তৈরি করা , এর ফরম্যাটিং করা , প্রয়ােজনে এডিট বা পরিবর্তন করা ও একে সেইভ । করে রাখার প্রক্রিয়া । এ প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত অ্যাপ্লিকেশনগুলােকে বলা হয় ওয়ার্ড প্রসেসর । যেমন , আমাদের কাছে সবচেয়ে পরিচিত ওয়ার্ড প্রসেসর হলাে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড । অন্যদিকে অনলাইনে রয়েছে গুগল ডক্সের ( Google Docs ) মতাে প্রসেসর । যে এপ্লিকেশনগুলাে ওয়ার্ডপ্রসেসরের কাজ করে তাদের ওয়ার্ডপ্রসেসর বলে । যেমন : নােটপ্যাড , মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এগুলাে সব একেকটি ওয়ার্ডপ্রসেসর ।


    ২. পেজ সেটআপঃ 

    ওয়ার্ডে বিভিন্ন মাপের কাগজে ডকুমেন্ট তৈরি করা যায় । এছাড়া মার্জিন কি হবে তাও নির্ধারণ করা যায় । এ কাজ সমূহ করার জন্য মেনু বারের File মেনু হতে Page Setup অপশন নির্বাচন করতে হবে । তাহলে নিম্নরূপ Page Setup ডায়লগ বক্স প্রদর্শিত হবে ।


    Margins ট্যাব নির্বাচন করলে ডান , বাম , উপর ও নিচের মার্জিন নির্বাচন করা যাবে । Paper Size ট্যাব হতে পৃষ্ঠার মাপ কি হবে তা নির্বাচন করা যাবে । প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে পৃষ্ঠার সাইজ ও পরিবর্তন করার পর কি রকম পরিবর্তন হবে তা Preview বক্সে দেখা যাবে । এছাড়া প্রিন্ট করার সময় কাগজের উৎস কি হবে তাও Paper Source ট্যাব হতে নির্ধারণ করে দেয়া যাবে । সর্বশেষে OK বাটনে ক্লিক করতে হবে । তাহলে পৃষ্ঠার মাপ ও মার্জিন নির্ধারিত হয়ে যাবে ।


    ৩. এমএস ওয়ার্ড বায়ােডাটা টাইপকরণঃ 

    লেখা টাইপ করা এম এস ওয়ার্ড চালু করার পর পরই একটা খালি পর্দা আসে । এই পর্দার শুরুতে বাম দিকে একটি ছােট কাল দাগ ব্রিঙ্ক করতে দেখা যায় । একে ইনসারসন পয়েন্ট বা কার্সর বলা হয় । পর্দার এই অবস্থাকে টেক্সট এরিয়া বা এডিটিং স্ক্রীন বা ওয়ার্কস্পেশ বলা হয় । কী - বাের্ড হতে যা কিছু টাইপ করা হয় সঙ্গে সঙ্গে তা কার্সর পজিশনে চলে আসে । টাইপ করার সময় এক লাইন শেষ হয়ে গেলে কার্সর স্বয়ংক্রিয়ভাবে দ্বিতীয় লাইনে চলে যায় । একটি লাইনে টাইপ করার পর কী - বাের্ড হতে দিলে কার্সর নিচে পরের লাইনে চলে আসে । এভাবে নতুন একটি লাইন টাইপ করলে তা নতুন প্যারাগ্রাফ হিসাবে গন্য হবে । এভাবে প্রতিবার Enter চাপ দেবার সাথে সাথে একটি করে নতুন প্যারাগ্রাফ তৈরি হতে থাকবে । কখনাে কখনাে টাইপ করার পর টেক্সটের মাঝখানে নতুন কিছু সংযােজন করার প্রয়ােজন হতে পারে । নুতন কোন লেখা সন্নিবেশিত করতে হলে যেখানে লিখতে হবে কার্সরকে সেই স্থানে নিয়ে টাইপ করলেই হবে । তাহলে সেই স্থানে নতুন লেখা হবে এবং পরের লেখা সমূহ ডান দিকে সরতে থাকবে ।

    এম এস ওয়ার্ড মূলত একটি ইংরেজি ওয়ার্ড প্রসেসর । এতে বাংলায় কোন কিছু টাইপ করতে হলে উইন্ডােজের সিস্টেমে কিছু বাংলা সফটওয়্যার ইনস্টল করে নিতে হবে । অতঃপর বাংলা ফন্ট ও   - বাের্ড নির্বাচন করে নিয়ে বাংলাতে টাইপ করা যাবে । বাংলা টাইপ করার জন্য বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন প্রকার সফটওয়্যার পাওয়া যায় । যেমন বিজয় , লেখনি , প্রশিকা , প্রবর্তন ইত্যাদি । তার মধ্যে বিজয় বেশি ব্যবহৃত হয় । যদি কম্পিউটারে বিজয় সফটওয়্যার রবি ইনস্টল করা থাকে , তাহলে নিম্নলিখিত উপায়ে বাংলা টাইপ করা যাবে ।

    ১. প্রথমে ফরমেটিং টুলবারের ফন্ট নেম বক্স হতে মাউসের সাহায্যে বাংলা যে কোন ফন্ট ( যেমন সুতন্নী ফন্ট ) নির্বাচন - করুন ।

    ২. এবার কী - বাের্ড পরিবর্তনের জন্য Ctrl + Alt B কী একত্রে চাপুন । কী - বাের্ড পরিবর্তন হয়েছে কিনা সঠিকভাবে জেনে নিন । যদি কী - বাের্ডের ‘ M ’ কী চাপলে বাংলায় ‘ ম ’ টাইপ হয় তাহলে বুঝতে হবে কী - বাের্ড বাংলা টাইপ করার উপযুক্ত হয়েছে । 

    ৩. এবার টাইপ করতে থাকলে বাংলায় টাইপ হতে থাকবে । তার আগে জেনে নিতে হবে কী - বাের্ডের বিভিন্ন কী - তে বাংলা অক্ষরের অবস্থান । নিম্নে বিজয় কী - বাের্ডের লে আউট দেয়া হল ।


    ৪. ডকুমেন্টে ফন্টের সাইজ পরিবর্তনঃ 

    ফরমেটিং টুলবারের ফন্টের নামের পাশে ফন্ট সাইজ বাটনটি অবস্থান করে । এই বাটনের ডানে যে অ্যারাে চিহ্ন আছে সেখানে মাউসের সাহায্যে ক্লিক করলে স্ক্রীনে বিভিন্ন সাইজ প্রদর্শিত হবে । ফন্ট সাইজ লিস্টে ৮ হতে ৭২ পর্যন্ত সংখ্যা দেয়া থাকে । ইচ্ছা করলে তার থেকে ছােট বা বড় আকারের সংখ্যা টাইপ করে ফন্টের সাইজ পরিবর্তন করা যায় । পূর্বে টাইপ করা কোন লেখার ফন্ট সাইজ পরিবর্তন করতে চাইলে লেখাটিকে সিলেক্ট বা নির্বাচন করে  হবে । অতঃপর ফন্ট সাইজ নির্বাচন করলে নির্বাচিত লেখাটির ফন্ট সাইজ পরিবর্তিত হবে। 



    ২০২১ সালের এইচএসসি (বিএম) ৬ষ্ট সপ্তাহের এসাইনমেন্ট সমাধান /উত্তর কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ (১ম পত্র) 



    Tag: এইচএসসি বিএম এসাইনমেন্ট ২০২১ উত্তর/সমাধান কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ (৬ষ্ট সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৪,  ২০২১ সালের এইচএসসি (বিএম) ৬ষ্ট সপ্তাহের এসাইনমেন্ট সমাধান /উত্তর কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন-১ (১ম পত্র), এমএস ওয়ার্ড ব্যবহার করে বাংলা/ইংরেজিতে একটি বায়োডাটা তৈরি করার ধাপ বর্ণনা কর

    Previous Post Next Post

    👇 সকল ক্লাসের এসাইনমেন্ট নোটিফিকেশন আকারে সহজে পেতে ডাউনলোড করুন আমাদের এপ্লিকেশন 

    আমাদের ফেসবুক পেইজে যুক্ত হতে ক্লিক করুন